গুগল এর সেরা বিকল্পসমূহ

গুগল যা ছাড়া আমাদের নেট লাইফ একরকম অচলই বলা চলে। কিন্তু এই গুগল পন্যের প্রত্যেকটিরই ভাল বিকল্প রয়েছে যা নিয়ে বিশদ ভাবে লিখেছেন টেকপ্রেমী কে এস নাহিদgoogle-alternative

 

“গুগল” বর্তমান কালের এক অত্যাবশ্যকীয় অপ্রতিরোধ্য নাম। কি নেই গুগলে মাঝে মাঝে সেটাই ভাবি।

হ্যাঁ,বর্তমান সময়ে আমরা গুগলে এতটাই নিমজ্জিত যে অন্য কোন সার্চ ইঞ্জিন পৃথিবীতে আছে সেটা মানতেই চাই না।

ভুল ভাববেন না। আমি গুগল ভালবাসি,সবাই ভালবাসেন।কিন্তু আমাদের জানা দরকার না,এর বিকল্প অন্য কোন ভালো সাইট আছে কি না?

নিম্নোক্ত বিষয় গুলোর জন্য আমরা সবচেয়ে ভালো বিকল্প সাইট গুলো সম্পর্কে জানব আজ…………………

০১। Search

০২।Email

০৩। Docs

০৪।Maps

০৫।News

০৬।Entertainment

০৭।Video

০৮।Photos

০৯।Browsers

১০।Cloud File Storage

১১।Social

 

এখন আমি লিখব উপরোক্ত বিষয় গুলোর বিকল্প সার্চ ইঞ্জিন………………

(০১) গুগল সার্চ বিকল্পঃ-

g

  • পৃথিবীতে সবচেয়ে জনপ্রিয় সার্চ ইঞ্জিন।
  • নিমিষের ভিতরেই যে আপনার সামনে আপনার চাহিদা অনুযায়ী হাজারও তথ্য ভান্ডার উন্মুক্ত করে দিতে পারে।

d

  • গ্যাব্রিয়েল ওয়াইনবার্গের দ্বারা প্রতিষ্ঠিত।
  • এইটা এমন একটা সার্চ ইঞ্জিন যেটা প্রাইভেছির উপর খুব গুরুত্ব দেয়।
  • পূর্ববর্তী কোন অনুসন্ধান এর রেকর্ড এইটা রাখে না।
  • গোপনীয়তা রক্ষা করে এবং নজরদারি করে না বলেই এই সার্চ ইঞ্জিন সকলের কাছে জনপ্রিয় । ব্যক্তিগত তথ্য, পরিচয়, স্থান ইত্যাদি অনুসরণ করে না, তথ্য বা ডাটা রেকর্ড করে না এবং বিজ্ঞাপনদাতাদের কাছে বিক্রি করে না ।
  • যদি কোনো কিওয়ার্ড এর নতুনভাবে সার্চ রেজাল্ট অথবা কার্যকরী সার্চ রেজাল্ট প্রয়োজন হয় তাহলে এই সার্চ ইঞ্জিন খুব ভালো সহায়ক হবে। এই সার্চ ইঞ্জিনে কোনো কিছু খুজেঁ দেখলে ঐ কিওয়ার্ড এর ছবি সহকারে সার্চ রেজাল্ট চলে আসবে। সাথে ভিডিও এর অপশনও চলে আসবে। একবার চাইলে ব্যাবহার করে দেখতে পারেন।

b

  • মাইক্রোসফট এর একটা সার্চ ইঞ্জিন।
  • স্ট্যান্ডার্ড ওয়েব সার্চ রেজাল্ট সহ ইমেজ, ভিডিও, শপিং নিউজ ইত্যাদি সার্চ সুবিধা প্রধান করে থাকে।
  • ”বি অ্যান্ড ডিসাইড” মানে হোল বিং এ অনুসন্ধান করুন এবং সিদ্ধান্ত নিন। এইটা হোল বিং এর স্লোগান।
  • মাইক্রোসফট বিং কে ডিসিশন ইঞ্জিন বলে আখ্যায়িত করেছে,যা ব্যাবহার কারীকে কোন ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিতে সাহায্য করে।
  • সবচেয়ে মজার ব্যাপার হল বিং এর ব্যাকগ্রাউন্ড এর হোম পেজ এর পিকচার প্রতিদিন পরিবর্তন করে।

 

(২) গুগল ইমেইল সেবা বিকল্পঃ-

gmail-google-unsubscribe-appজিমেইলের পরীক্ষামূলক সংস্করণ চালু হয় ১ই এপ্রিল ২০০৪ সাল এ বেটা ভার্সন আকারে এবং সর্বসাধারণের জন্য এটি উন্মুক্ত হয় ৭ই ফেব্রুয়ারী ২০০৭ পরবর্তীতে ৭ই জুলাই ২০০৯ এ পরিপূর্ণ সংস্করণ হিসেবে প্রকাশ করা হয়।

  • জিমেইলে রয়েছে শক্তিশালী ফিল্টার সুবিধা। এখন পর্যন্ত সকল webmail সার্ভিস provider দের মধ্যে জিমেইল এর সব থেকে ভাল স্পাম ফিল্টার আছে বলে ধারনা করা হয়। এতে ব্যবহারকারীরা যদি কোন ই-মেইলকে স্প্যাম হিসেবে নির্বাচিত করে দেন তা হলে তা স্প্যাম বক্সে চলে যায়। এছাড়া নির্দিষ্ট কোন ব্যবহারকারীর ই-মেইল যদি স্প্যাম নির্বাচন করে দিলে উক্ত ব্যবহারকারীর সবগুলোই ই-মেইলই স্প্যামে চলে যায়। যার ফলে স্প্যাম থেকে সহজে রক্ষা পাওয়া যায়।

f

  • একটা স্বাধীন ইমেইল সেবা দান কারী কোম্পানি।
  • ব্যক্তিগত এবং ব্যবসার জন্য ইমেইল প্রদান করে।
  • গুরুত্বপূর্ণ ইমেইল গুলী পিন করে রাখা যায়,যার কারনে হারানোর সম্ভাবনা থাকে না।
  • এটা সত্যিকারেই নামের মতন কাজের,খুব দ্রুত ইমেইল প্রেরণ করে।

p

  • সুইজারল্যান্ড ভিত্তিক একটি ইমেইল পরিষেবা দান কারী সংস্থা।
  • can send encrypted emails to non-ProtonMail accounts.o
  • MIT এবং CERN এর বিজ্ঞানীরা এইটা তৈরি করেন।

 

  • মাইক্রোসফট এর একটি ইমেইল সেবা।
  • এইটা পূর্বে hotmail হিসেবে পরিচিত ছিল,কিন্তু মাইক্রোসফট এর মালিকানা কিনে নিয়ে সম্পূর্ণ নাম পরিবর্তন করে দেয়।

 

 

(৩)গুগল অল্টারনেটিভ ফর docs ঃ-

Google-Docs

  • এটি ব্যাবহার করা খুবি ইজি এবং ফ্রী।
  • যেকোন যায়গা থেকে কাজ করার সুবিধা পাওয়া যায়। এটা  দিয়ে কম্পিউটার ছাড়া ও স্মার্ট মোবাইল দ্বারা  কাজ করা যায়।
  • ডকুমেন্ট শেয়ার করা যায়।
  • এটা ব্যাবহার করার পূর্ব শর্ত হল একটা জিমেইল অ্যাকাউন্ট থাকা।
  • আমাদের দেশে যে অফিস ম্যানেজমেন্ট এর কাজ করা হয় তার মাঝে ৯০% এ হয় মাইক্রোসফট অফিস দিয়ে যার আবার সিংহভাগই পাইরেটেড। অনেকে ওপেনফিস ব্যবহার করলেও সন্তুষ্ট নন কারণ ওপেন অফিস এর মেমরী কঞ্জাম্পশন কিছুটা বেশি। ওয়েবে বেশ কিছু অনলাইন ওয়েব অফিস প্রোডাক্টিভিটি স্যুট আছে তাদের মাঝে আমার দৃষ্টিতে সবচেয়ে ভালো মনে হয় গুগল ডকস কে।
  • গুগল ডকস এ আপনি ওয়ার্ড প্রোসেসর,স্প্রেডশিট এনালাইযার, ফর্ম ক্রিয়েটর এবং প্রেজেন্টেশন ক্রিয়েটর আছে।
  • আপনি এখানে বিভিন্ন ধরণের ফরম্যাট এ ডকুমেন্ট সেভ করতে পারবেন যেমনOpenOffice, HTML, PDF, RTF, Text, Word ।
  • গুগল ডকস একটি ফ্রি সার্ভিস তাই এখানে কিছু লিমিটেশন আছে যা থাকাটাই স্বাভাবিক।
  • লিমিটেশনগুলোর মাঝে উল্লেখযোগ্য হল আপনার ডকুমেন্ট ৫০০কিলোবাইট এর বেশি হতে পারবে না, ছবি সংযুক্ত করলে তার আকার ২ মেগা বাইট এর বেশি হওয়া যাবে না।
  • স্প্রেডশিট এর সর্বোচ্চ সীমা হল ২৫৬ কলাম, ২০,০০০ সেল এবং ৯৯টি শিট। এক সময়ে আপনি সর্বোচ্চ ৫০০০ ডকুমেন্ট এবং প্রেজেন্টেশন,১০০০ স্প্রেডশিট এবং ১০০ পিডিএফ ফাইল রাখতে পারবেন।
  • সব মিলিয়ে খুবই ভালো একটি সার্ভিস গুগল ডকস।

zoho_docs_documentosসহযোগিতার ওপর ভিত্তি করে রিয়েল টাইমে সহকর্মীদের সঙ্গে নথি সম্পাদনা করা যায়।

  • এর মাধ্যমে একটি পাসওয়ার্ড এবং নথিতে একটি মেয়াদ উত্তীর্ন তারিখ সেট আপ করা যায় এবং যে কারো সাথে শেয়ার করা যায়।
  • এটি একটি সম্পূর্ণ ফ্রী সেবা।

iwork1

  • স্প্রেডশিট, উপস্থাপনা এবং তৈরি করার সবচেয়ে সহজ উপায়।
  • লেখা এবং পৃষ্ঠার লেআউট পেজ ব্যবহার করে সহজ।
  • মাইক্রোসফট অফিস সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ, তাই কাজ ভাগ করে নেওয়ার আরও সহজ হয়।
  • অ্যাপল হার্ডওয়্যার বিনা ব্যবহারকারীদের উপর কিছু বিধি নিষেধ আছে।

Office_365_logo

  • পূর্বে এটাকে Office Web Apps, Microsoft’s free/lightweight browser-based version বলা হতো।
  • মাইক্রোসফট অফিস ফাইল ফরম্যাটে নথি সংরক্ষণ করা হয় এবং অন্যথায় মাইক্রোসফট বাস্তু সাথে ভাল কাজ করে।
  • আপনি নতুন কিছু শিখতে হবে না।
  • একটা ড্রাইভ এর মাধ্যমে ১৫ জিবি ফ্রী storage পাওয়া যাবে।

 

(৪) গুগল এর বিকল্প মাপ সেবাঃ-

Google-Maps-icon

  • মোবাইল এবং কম্পিউটার উভয় জায়গায় সাপোর্ট পাওয়া একটা অ্যাপ।
  • এক সিস্টেমের কার্যকারিতা প্রচুর (সন্ধান নির্দেশ, গৌণ অ্যাপ্লিকেশন দ্বারা-বন্দরে একটি মৌলিক কাস্টম মানচিত্র, ইত্যাদি তৈরি)।
  • গুগল স্ট্রিট ভিউ প্রতিযোগীদের তুলনায় খুবই জোরালো।
  • ডেক্সটপ থেকে মোবাইল এ লোকেশান পাঠানো যায়।
  • মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন জন্য মানচিত্র কাস্টমাইজ করার ক্ষমতা ভাল নয়।
  • বিচ্ছিন্ন এলাকার জন্য অসম্পূর্ণ হতে পারে অথবা ধীরে ধীরে লোড হতে পারে।

waze

  • Waze বিশ্বের বৃহত্তম কমিউনিটি ভিত্তিক ট্রাফিক ও পরিভ্রমন অ্যাপ্লিকেশন।
  • এলাকায় অবস্থিত ড্রাইভার দের মধ্য থেকে যারা রিয়েল টাইম ট্রাফিক শেয়ার করে তাদের সাথে যোগ দেয়া যাবে।
  • রিয়েল টাইম ট্রাফিক এর আপডেট খবর হয়।
  • পুলিশ ট্র্যাকিং সম্পর্কে সতর্কতা করে।
  • গুগল মালিকানাধীন।

apple-maps-connect

  • iOS এবং OS X এর সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ অ্যাপল পণ্যে ডিফল্ট ম্যাপ অ্যাপ্লিকেশন।
  • 3D ফ্লাইওভার বৈশিষ্ট্য চমত্কার,নকশা এবং ইন্টারফেস, নেভিগেট যখন বুঝতে অপেক্ষাকৃত পরিষ্কার এবং সহজ হয়, ট্রাফিক সতর্কতা,যোগাযোগের তথ্য, হোটেল রিভিউ ইত্যাদি অনুসন্ধান করা যায়।
  • শুধু আপেল হার্ডওয়্যার সঙ্গে কাজ করে,।
  • পাবলিক ট্রানজিট দিক এই বছরের শেষের দিকে পর্যন্ত প্রকাশ করা হবে না এবং শুধুমাত্র কয়েকটি শহর, কোন সাইকেল রুট বা অফলাইন মোড জন্য উপলব্ধ করা হবে।
  • এখনো কোন ছবির-ম্যাপিং বৈশিষ্ট্য যোগ করা হয় নাই।

Bing_Maps_blue20logo

  • দ্বিমাত্রিক এবং ত্রিমাত্রিক ঢঙে বিং এর বেটা ম্যাপ৷ এতে রয়েছে রাস্তা ঘাটের মানচিত্রও৷
  • এই ম্যাপটিতে ভালো মানের ছবি দেখতে হলে ডাউনলোড করতে হবে মাইক্রোসফট সিলভার লাইট৷
  • বিং বেটায় আপনি কোন এলাকার মানচিত্র যখন দেখতে চাইবেন, ঐ মানচিত্রের সঙ্গে চলে আসবে উইকিপিডিয়ায় সে সংক্রান্ত যাবতীয় তথ্য৷
  • সঙ্গে আসবে ঐ শহরের আবহাওয়ার খবরাখবর৷
  • পর্যটকদের জন্য এটা খুবই ভালো সহায়তা।
  • আরও জানতে চান৷ ক্লিক করুন ডিটেইলস বাটনে৷ চলে আসবে স্থানীয় খবর, ফটো ইত্যাদি৷

 

 

(৫)গুগল এর বিকল্প খবরা-খবর সেবাঃ-

google-news

  • google.com.bd ঠিকানায় গিয়ে পড়া যাবে বাংলা সংবাদ।
  • এখানে বাংলাদেশের জন্য আলাদা একটি সংস্করণ যুক্ত করা হয়েছে যা নির্বাচিত করে বাংলায় খবর পড়ার সুবিধা উপভোগ করা যাবে।
  • বাংলাদেশ, বিশ্ব, প্রযুক্তি, ব্যবসা, বিনোদন এবং খেলাধুলা ক্যাটাগরিতে পাওয়া যাবে বাংলা খবর।
  • এর পাশাপাশি সকল ক্যাটাগরি থেকে বাছাই করা খবর নিয়ে সেরা খবর নামে আলাদা একটি ক্যাটাগরিও থাকছে।
  • বর্তমানে ৪৫টি দেশের ২৮টি ভাষায় গুগল সংবাদ চালু আছে।

download

  • মাইক্রোসফট এর পক্ষ থেকে সার্চ ইঞ্জিন এবং একটি উন্নত মানের সংবাদ সাইট।
  •  নিউজ সার্চ ইঞ্জিন এর জন্য ভাল সাইট।
  • মাইক্রোসফটের বিং সার্চ ইঞ্জিন এর একটি অংশ (পূর্বে অনুসন্ধান খবর লাইভ). এটি নিউ ইয়র্ক টাইমস, ওয়াশিংটন পোস্ট, MSNBC এবং রয়টার্স সহ বিশ্বস্ত এবং বিশ্বাসযোগ্য ইন্টারনেট সংবাদ উত্স, বিভিন্ন মাধ্যমে একটি সার্চ ইঞ্জিন এবং সংবাদ নিবন্ধ জন্য বিশেষভাবে সংযোগকারী হয়।

yahoo-news

  • আজ আমরা “Yahoo” নামের যে ওয়েবসাইটটিকে চিনি তার প্রথম নাম ছিল “Jerry’s Guide to the World Wide Web”
  • সার্চ ইঞ্জিন এবং সংবাদ সাইটের জন্য বিশেষভাবে সংযোগকারী, জাতীয় সংবাদ সাইট বেশিরভাগই নির্ভর।

 

(৬)গুগল এর বিকল্প বিনোদন কেন্দ্রঃ-

google-play-and-fanbridge-offer-musicians-free-artist-hub-accounts-2603fdb5be

  • মুভি, অ্যাপস, গেমস এবং বই বিক্রির গুগলের অনলাইন শপ।
  • এটি ২০১২ সালের মার্চ এর ৬ তারিখ যাত্রা শুরু করে।
  • এটি মূলত অ্যান্ড্রয়েড মার্কেটের পরিবর্তিত রূপ যা প্লেষ্টোর নামে বহুল পরিচিত।
  • App স্টোর এর মধ্যে থেকে সমস্ত এপস ম্যালওয়্যার জন্য চেক করা হয়।
  • প্রচুর পরিমাণে অ্যাপস রয়েছে এতে।

amazon-cover_w_500

  • স্বয়ংক্রিয়ভাবে অ্যান্ড্রয়েড ডিভাইস এর উপর ডাউনলোড আসে না।
  • অ্যাপ্লিকেশন নির্বাচন গুগল তুলনায় অনেক ছোট।
  • একি ধরণের অ্যাপ গুগল এর তুলনায় এখানে দাম বেশী হতে পারে।
  • আমেরিকার সিয়াটেল, ওয়াশিংটন এ এর সদর দপ্তর।
  • এটা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বৃহত্তম ইন্টারনেট ভিত্তিক খুচরা বিক্রেতা।
  • ডিভিডি, ব্লু-রে, সিডি, ভিডিও ডাউনলোড / স্ট্রিমিং, MP3 টি ডাউনলোড / স্ট্রিমিং, সফটওয়্যার বিক্রি করার বহুমুখীকরণের, অনলাইন বইয়ের দোকান হিসেবে শুরু, ভিডিও গেমস, ইলেকট্রনিক্স, পোশাক, আসবাবপত্র, খাদ্য, খেলনা ও গয়না,ই বুক রিডার, ফায়ার ট্যাবলেট, ফায়ার টিভি ও ফায়ার উত্পাদন ফোন এবং মেঘ পরিকাঠামো বিশ্বের বৃহত্তম সেবা প্রদানকারী।
  • আমাজন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য এবং আয়ারল্যান্ড, ফ্রান্স, কানাডা, জার্মানি, ইতালি, স্পেন, নেদারল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া, ব্রাজিল, জাপান, চীন, ভারত ও মেক্সিকো জন্য পৃথক খুচরা ওয়েবসাইট আছে।
  • 2015 সালে, আমাজন বাজার মূলধন দ্বারা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে সবচেয়ে মূল্যবান খুচরা বিক্রেতা হিসেবে ওয়ালমার্ট অতিক্রান্ত করে।

           

     appstore

                           Itunes and Appstores

  • অ্যাপল ডিভাইস বিনোদন ক্রয়ের জন্য দুই অনলাইন দোকান।
  • App স্টোর বা দোকান iOS অ্যাপ্লিকেশান জুড়ে এবং আই টিউনস সঙ্গীত।
  • ভিডিও (টিভি শো এবং সিনেমা) ।
  • গুগল প্লে এর ন্যায় same সংখ্যক অ্যাপ এইখানে রয়েছে।
  • অ্যাপল সঙ্গীত ডেস্কটপ অ্যাপ্লিকেশান নিবেদিত।
  • শুধুমাত্র আই টিউনস সঙ্গে আপেল ডিভাইস বা পিসিতে ভিডিও দেখা যায়।

 

(৭)গুগল এর বিকল্প ভিডিও দেখার ক্ষেত্রঃ-

youtube_desktop_wallpaper_by_bbarnard77-d41ixfl

  • ২০০৫ সালে প্রথম মুক্ত ওয়েবসাইট হিসেবে যাত্রা করে।ইউটিউবের শ্লোগান হল “broadcast yourself”..এটি বলতে বুঝিয়েছে যে, ইউটিউব সার্ভিস ডিজাইন করা হয়েছে সাধারণ মানুষদের জন্য যারা নিজেদের তৈরি ভিডিওগুলো প্রকাশে আগ্রহী।
  • ইউটিউব শুধু বিনোদনেরই নয় এটি গবেষণার কার্যকর একটি উপকরণ।
  • পুরোটাই ফ্রি, এসইও সুযোগ ভাল।
  • এটা একটি জনপ্রিয় প্ল্যাটফর্ম কারণ এটি নগদীকরণ করা আপনার একাউন্ট সেট আপ করা সহজ।
  • কোন মানুষ তার পুরো টা জীবন শেষ করলেও ইউটিউব এর সব গুলো ভিডিও দেখে শেষ করতে পারবে না।

vimeo_button

  • ভিমিও হল একটি ভিডিও শেয়ারিং ওয়েবসাইট।
  • আমরা প্রায় সবাই ভিডিও আদান প্রদান করার জন্য একমাত্র সাইট হিসাবে ইউটিউবকেই জানি। কিন্তু ভিমিও হল একটি ভালো বিকল্প ইউটিউব এর। কারণ এখানে আপনি হাই ডেফিনেশন ভিডিও আপলোড করতে পারবেন।
  • নিজের প্রোফাইল খুলতে পারবেন।
  • এভাটার সিলেক্ট করতে পারবেন।
  • কোন ভিডিও এখান থেকে সরাসরি আপনার ব্লগে বা ইয়াহু মেমেতে সংযুক্ত করতে পারবেন।
  • কারো আপলোড করা ভিডিওতে মন্তব্য করতে পারবেন বা পছন্দ করতে পারবেন।
  • ভিমিও ফ্রি এবং পেইড উভয় ধরণের সার্ভিস দেয়।
  • বছরে ৬০ ডলার দিয়ে আপনি আরও যে অতিরিক্ত সুবিধাগুলো পাবেন তা হল সপ্তাহে ৫ গিগাবাইট আপলোড করার সুবিধা,অসীম সংখ্যক গ্রুপ,চ্যানেল এবং এলবাম করার সুযোগ,হাই ডেফিনেশন ভিডিও আপনার সাইট এ যোগ করার সুবিধা এবং সব আপলোডে অগ্রাধীকার।
  • তবে ভিমিও তে কোন বিজ্ঞাপন,গেমের ট্রেলার এবং পর্ণোগ্রাফিক কনটেন্ট নিষিদ্ধ।

Dailymotion

  • 112 মিলিয়ন মাসিক দর্শক।
  • প্রাপ্তবয়স্ক এবং অন্যান্য কুয়াশাচ্ছন্ন কন্টেন্ট প্রচুর ফলে সহজেই পাওয়া যায়।
  • Dailymotion ব্যবহারকারীদের আপলোড করতে, দেখতে এবং ভিডিও শেয়ার করতে দেয়।
  • যা একটি ফরাসি ভিডিও শেয়ারিং ওয়েব সাইট এবং প্ল্যাটফর্ম, “দরিদ্র মানুষ এর YouTube” বলা হয়েছে।
  • এটি ব্যবহারকারীদের, স্বাধীন স্রষ্টাদের এবং প্রিমিয়াম অংশীদারদের থেকে কন্টেন্ট একটি মিশ্রণ নৈবেদ্য, বিশ্বের সবচেয়ে বড় ভিডিও প্ল্যাটফর্মের একটি।

(৮)গুগল এর বিকল্প ফটো সেবাঃ-

unnamed

  • আনলিমিটেড ছবি স্টোর করার সুবিধা দিয়ে থাকে।
  • চমৎকার একটি ওয়েব সাইট, সাথে রয়েছে অ্যান্ড্রয়েড, আইফোন, ম্যাক বা উইন্ডজ থেকে সরাসরি এবং স্বয়ংক্রিয় ফটো আপলোড সুবিধা।
  • এতে শেয়ার করার জন্য জনপ্রিয় কিছু সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম যোগ করেই দেয়া হয়েছে ফলে খুব সহজেই ছবিগুলো শেয়ার করা যায়। এছাড়াও ইন্সট্যান্ট মেসেজ, ইমেইল বা অন্যান্য মাধ্যমেও ছবিগুলো শেয়ার করা যায়।

 

apple-photos-300x300

  • IPhoto এবং অ্যাপারচার প্রতিস্থাপিত জন্য যে ছবি ব্যবস্থাপনা ও এডিটিং অ্যাপ্লিকেশন।
  • iCloud বিভিন্ন ডিভাইসের উপর স্বয়ংক্রিয়ভাবে iCloud থেকে ছবি backs আপ ও আপেল ডিভাইস জুড়ে সিঙ্ক,এছাড়াও সময়, তারিখ ও অবস্থান দ্বারা তাদের কে সংগঠিত করে।
  • সিঙ্ক হয়েছে এমন ফটোগুলি ও ভিডিও রাখা ব্যবহার করে।
  • family এবং বন্ধুদের সাথে শেয়ার করতে সুবিধা।

sketch___flickr_logo_by_breezy_the_pro-d6djonu

  • ইয়াহু এর চ্যাট ব্যবহার করেই আমরা সবাই খুবই আনন্দে থাকি। কিন্তু ইয়াহু এর যে আরও অনেক সুন্দর সুন্দর সার্ভিস আছে তা আমাদের অনেকেই জানিনা।
  • এরকম একটি সার্ভিস হল ফ্লিকার।
  • ফ্লিকার হল একটি ফটো শেয়ারিং ওয়েবসাইট।
  • এখানে ছবি আপলোড করা যায়।
  • অন্যের আপলোড করা ছবি দেখা যায়।
  • মন্তব্য করা যায়।
  • গ্রুপ আছে যোগ দেয়া যায়।
  • ছবি ট্যাগ,ব্যাচ ইত্যাদি সবই করা যায় এখান থেকে।
  • ফ্লিকার এর নরমাল এবং প্রো উভয় ধরণের একাউন্ট ই আছে।
  • নরমাল একাউন্টে আপনি ৯০ সেকেন্ড এর বেশি বড় ভিডিও রাখা যায় না এবং মাসে মাসে ১০০ মেগাবাইট আপলোড লিমিট থাকবে।
  • প্রো একাউন্ট এ কোন রেস্ট্রিকশন থাকবে না।
  • ফ্লিকার ইয়াহু এর একটি অঙ্গসংগঠন বলে ইয়াহু আই ডি দিয়েই ফ্লিকার ব্যবহার করা যায়।

amazon-prime-logo

  • আমাজন এর বৃহত্তর প্রাইম পরিষেবা উপসেট, মেঘ ফটো সীমাহীন স্টোরেজ জন্য করা যায়।
  • প্রাথমিক সদস্যদের জন্য ফ্রি সেবা।
  • ভিডিও এর জন্য 5GB সঙ্গে সীমাহীন ছবির স্টোরেজ।
  • প্রতিটি প্রধান অপারেটিং সিস্টেমের সাথে কাজ করে।
  • iOS, অ্যানড্রইড, ম্যাক, উইন্ডোজ,এমনকি কিন্ডল ফায়ার।
  • পরিপূর্ণ রেজুলেশন সহ ছবি সংরক্ষন করে।
  • খুব বেশী ইডিটিং অপশন নেই।
  • অতিরিক্ত storage লাগলে অস্ট্রেলিয়া ও যুক্তরাজ্যে অতিরিক্ত খরচ লাগে।
  • সাংগঠনিক সরঞ্জাম সীমাবদ্ধ এবং কোন অনুসন্ধান নেই।

 

(৯)গুগল এর বিকল্প ব্রাউজারঃ-

chrome-play-shot

  • গুগল এর একটি ব্রাউজার।
  • ওপেন সোর্স Chromium এর প্রকল্পের উপর ভিত্তি করে।
  • সমগ্র ব্রাউজার বন্ধকরণ ছাড়া ধীর বা হিমায়িত পৃষ্ঠাগুলি ধ্বংস করতে পারে।
  • স্বয়ংক্রিয়ভাবে বিদেশী ভাষা পেজের অনুবাদের, সহজ ইন্টারফেস এবং দ্রুত লোড সময় উপলব্ধ করা হয়।
  • প্রচুর এক্সটেনশন পাওয়া যায়।
  • ইতিহাস,বুকমার্ক ইত্যাদি ডিভাইস জুড়ে সুসঙ্গত করতে চাইলে একটি Google অ্যাকাউন্ট তৈরি করতে হবে।
  • অন্য কোনো ব্রাউজার হিসাবে দ্রুত না।

maxresdefault

  • Vivaldi প্রযুক্তি দ্বারা বিকশিত একটি ওয়েব ব্রাউজার।
  • অপেরা সফটওয়্যারের সাবেক প্রধান নির্বাহী জন ভন টেচনার ইন্টারনেট ব্যবহারকারীদের সুবিধার্থে ভিভালডি নামের নতুন একটি ব্রাউজার তৈরি করেছেন।
  • এই ব্রাউজারটি প্রাথমিকভাবে  উইন্ডোজ, ম্যাক ও লিনাক্স প্ল্যাটফর্মে  ব্যবহার করা যাচ্ছে।
  • সফটওয়্যার নির্মাতা টেচনার গত ২৭ জানুয়ারি এই ব্রাউজারটি ডেস্কটপ কম্পিউটারের জন্য  উন্মুক্ত করেছেন।
  • ভিভালডি ব্রাউজারটি মূলত তৈরী তাদের জন্য যাঁরা বেশি বেশি ইন্টারনেট ব্যবহার করেন।
  • এই ব্রাউজারটির ইন্টারফেস এমনভাবে তৈরি করা হয়েছে যে, এই ব্রাউজারটির স্ক্রিনে যেসব ট্যাব ওপেন করা হয় তা দেখতে বিশেষ সুবিধা হয়।
  • মোবাইল ফোন ও ট্যাবলেট সংস্করণের জন্য এই ভিভালডি ব্রাউজারটির আরো কিছু কাজ চলছে।
  • এই কাজটি সম্পূর্ণ হলেই ব্রাউজারটিকে পরিপূর্ণভাবে উন্মুক্ত করা হবে।
  • তবে তারাই বেশি সুবিধা পাবেন যারা বেশি বেশি নেট ঘাঁটেন এবং ব্রাউজার থেকে বেশি কিছু চান, মূলত ভিভালডি তৈরি করা তাদের জন্যই।
  • ভিভালডি ব্রাউজারে অন্যান্য সুবিধার মাঝে বিশেষত রয়েছে ব্যক্তিগত নোট রাখা, ছোট স্ক্রিন শটের মাধ্যমে বুকমার্ক করে রাখা, একাধিক গ্রুপ ও ফোল্ডার তৈরি করার মতো বিশেষ ফিচার।

microsoftedge

  • মাইক্রোসফট মালিকানাধীন নাম “Project Spartan,” অধীনে উন্নত এবং উইন্ডোজ 10 ডিভাইসের ডিফল্ট ব্রাউজার হিসাবে ইন্টারনেট এক্সপ্লোরার প্রতিস্থাপন করবে।
  • ২০১৫ সালের জানুয়ারি তে“প্রোজেক্ট স্পার্টান” এর মাধ্যমে শুরু হয়েছিলো মাইক্রোসফটের নতুন ব্রাউজার ডেভেলোপমেন্টের কার্যক্রম।
  • নতুন ব্রাউজারটির ডেভেলোপমেন্টে ব্যবহৃত অপারেটিং সিস্টেম “মাইক্রোসফট ১০” এর রেন্ডারিং ইন্জিন EdgeHTML এর নাম অনুসারেই এর নাম রাখা হয়েছে Microsoft Edge।
  • ইন্টারনেট এক্সপ্লোরের উত্তসূরী মাইক্রোসফট এজ উইন্ডোজ ১০’এর ডিফল্ট ব্রাউজার হিসেবে পাওয়া যাবে।
  • নতুন ফিচার হিসেবে এতে যুক্ত হয়েছে- ডিজিটাল ইঙ্ক এনোটেশন,করটানা ইনটেগরেশন ও বিল্টইন রিডিং লিস্ট।
  • মাইক্রোসফট এর এই নতুন ব্রাউজার তৈরির পিছনে উদ্দেশ্য ছিল ইন্টারনেট এক্সপ্লোরের ত্রুটি ও অক্ষমতাগুলোকে অতীত ইতিহাসে পরিনত করে একটি দ্রুতগতির অত্যাধুনিক ব্রাউজার উপহার দেয়া।
  • মাইক্রোসফট এজ’ শুধু উইন্ডোজ ১০ অপারেটিং সিস্টেমেই ব্যবহার করা যাবে।
  • নানা ধরনের উইন্ডোজ ১০’ ডিভাইস যেমন ডেস্কটপ,ল্যাপটপ,স্মার্টফোন,ট্যাবলেট বা হাইব্রিড ডিভাইসের উপযোগী করেই একে তৈরি করা হচ্ছে।
  • রেন্ডারিং ইঞ্জিন বেশ দ্রুত।
  • নতুন পাতা ট্যাব আপনি অনুসন্ধান এবং সর্বাধিক দেখা সাইট থাম্বনেল দেখতে দেয়।
  • Cortana ব্রাউজার সাথে একত্রিত করা হয়।

Mozilla-Firefox

  • মজিলা দ্বারা বিকশিত মুক্ত ও ওপেন সোর্স ওয়েব ব্রাউজার ।
  • ডেভেলপারদের প্লাস অন্যান্য টুলস এর জন্য বিশেষভাবে একটি সংস্করণ রয়েছে।
  • অন্যান্য ব্রাউজার তুলনায় আপেক্ষিক বৈশিষ্ট্য স্বনির্ধারণ অপশন।
  • ভাল নিরাপত্তা এবং গোপনীয়তা রয়েছে।
  • বিপুল সংখ্যক এক্সটেনশন রয়েছে।
  • ঘন ঘন আপডেট নিবে।
  • ক্রোম এর তুলনায় অনেক ফাস্ট।

 

(১০) গুগল এর বিকল্প Cloud File Storage:-

ojcbilvdfser9gbl17rjxq

  • গুগল ড্রাইভ হচ্ছে গুগলের ফ্রী স্পেস সার্ভিস।
  • যার মধ্যে সকল প্রয়োজনীয় ফাইল সমূহ,প্রেজেন্টেশনস, ছবি, ভিডিও ক্লিপসহ আরো অনেক কিছু নিরাপদে সংরক্ষন করা যায়।
  • অন্যদের শেয়ার করা যায়।
  • প্রয়োজনে পরিবর্তন, পরিবর্ধন, সংযোজন-বিয়োজন করে পুনরায় সংরক্ষন করা যায়।
  • গুগল ড্রাইভ একটি নিরাপদ ও একান্ত ব্যক্তিগত ফাইল কেবিনেট হিসাবে কাজ করে।
  • বিশ্বের যে প্রান্তেই থাকেন না কেন, সেখানে বসেই একসেস করতে পারবেন যেকোন কম্পিউটার, মোবাইল, আইফোন সহ অন্যান্য ডিভাইসের মাধ্যমে।  
  • প্রয়োজনে প্রিন্ট ও নেয়া যায়।
  • একজন ফ্রী ইউজার হিসাবে সর্বোচ্চ ৫ গিগাবাইট পর্যন্ত ব্যবহার করতে পারবে।
  • এর চেয়ে বেশী ব্যবহার করতে চাইলে প্রতিমাসে প্রতি ২৫ গিগাবাইট ২.৫ ডলার হিসাবে সর্বোচ্চ ১ টেরাবাইট পর্যন্ত ব্যবহার করা যায়।

dropbox-logo

  • ক্লাউড স্টোরেজ এবং ফাইল সিনক্রোনাইজেশন অন্তর্ভুক্ত স্বাধীন পরিষেবা।
  • এর সাহায্যে ফাইল দ্রুত আপলোড এবং শেয়ার করার সুবিধা, যা অন্য কোন খানে সম্ভব না।
  • ফাইল নষ্ট হবে না, আপলোড করা ফাইল এ লিমিটেশন নাই, অটো রিজিউম আপলোড, এছাড়া ডেক্সটপ অ্যাপ থাকার জন্য কাজটা আরো সহজ
  • ড্রপবক্স এর শেয়ার্ড ফোল্ডারটা আর দশটা ফোল্ডারের মতই যেখানে খুশি রাখা যায় এবং এই ফোল্ডারে যা রাখবেন তা নেট কানেকশন পেলেই অটো আপলোড হয়ে যাবে।
  • ড্রপবক্স htpps প্রটোকল ব্যবহার করে তাই এখানকার নিরাপত্তা অনেক ভাল।
  • যে কোন ধরনের ও যে কোন সাইযের ফাইল আপলোড করা যায়।
  • আপলোড করা ফাইল এর লিঙ্ক শেয়ারের মাধ্যমে যে কোন সাইজের ফাইল যে কাউকে ই-মেইল করা যায়।

18ixbghepud4ujpg

  • অ্যাপল এর cloud syncing এবং কম্পিউটিং সেবা।
  • MobileMe সহ বেশ কয়েক বছর আগে প্রতিস্থাপিত।
  • স্বয়ংক্রিয়ভাবে অ্যাপল ডিভাইসের back আপ করে।
  • iWork সাথে একত্রিত।
  • উইন্ডোজ ডিভাইস এ ও সাপোর্ট করে।

374159-onedrive-tips

  • ওয়ান ড্রাইভ হল ক্লাউড ষ্টোরেজ যা নিরাপদে ডাটা ইন্টারনেটে রাখার সুবিধা দেয়।
  • ফ্রিতে ৭ জিবি পর্যন্ত ডাটা রাখা যায়।
  • প্রয়োজন হলে যেকোন স্থান থেকে ডাউনলোড করে নেওয়া যায়।
  • Onedrive-এ ফটো, ভিডিও, এমপি৩, ওয়ার্ড সহ বিভিন্ন ফরম্যাটের ডাটা রাখা যায়।
  • আর যে কোন সময় মোবাইল, পিসি সহ বিভিন্ন ডিভাইস দিয়ে ডাউনলোড করে নেওয়া যায় প্রয়োজনীয় ফাইল।

box-logo

  • স্বাধীন অনলাইন ফাইল শেয়ারিং ও cloud কন্টেন্ট ম্যানেজমেন্ট সেবা।
  • ১০ জিবি ফ্রি
  • মাল্টি প্ল্যাটফর্ম এবং ফাইল অ্যাক্সেস করা সহজ করে তোলে।

 

 

(১১) গুগল এর বিকল্প Social Networking:-

google-plus

  • বিশ্বের প্রযুক্তি উন্নত প্রায় ৪০টি দেশে এখন গুগল প্লাসের জয়জয়কার ধ্বনি উঠছে।
  • সময়ের সাথে তাল মিলিয়ে বাংলাদেশের অনেকেই ফেসবুকের পাশাপাশি গুগল প্লাসকে নতুন বন্ধুত্বের মিলন কেন্দ্র হিসেবে গ্রহণ করেছেন।
  • কখনও গুগল প্লাস বা শর্টকাট জি+ নামে পরিচিত।
  • এটা ফেসবুক এর মতই,তবে আলাদা সামাজিক নেটওয়ার্ক সেবাদানকারি সাইট।
  • দ্যা নিউ ইয়োর্ক টামইস থেকে দাবি করা হয় গুগল প্লাস-ই বর্তমান বিশ্বে একমাত্র সামাজিক যোগাযোগের ওয়েব সাইট যেটা বের হওয়ার অল্প কিছু দিনের মধ্যে জনপ্রিয়তার শীর্ষে উপনীত হয়।
  • গুগল + এ বন্ধুদের আমন্ত্রণ জানানো যায়।
  • সার্কেল তৈরী করা এবং বন্ধুদের সার্কেলে যুক্ত করা যায়।

linkedin-earnings1

  • এক কথায়, LinkedIn হল একটি প্রফেশনাল নেটওয়ার্কিংওয়েবসাইট।
  • অন্যান্য সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং ওয়েবসাইটস, যেমনঃ ফেসবুক, টুইটার, মাইস্পেইস ইত্যাদি খুব বেশি গুরত্ব দিচ্ছে সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং এর দিকে। অন্যদিকে LinkedIn প্রফেশানালদের নিয়ে কাজ করে।
  • এখানে তাদেরকেই গুরুত্ব দেয়া হয় এবং ক্যারিয়ার সংক্রান্ত বিজনেস এর একটি যোগসূত্র থাকে যাতে করে তারা তাদের সার্ভিস এবং প্রফেশনাল দক্ষতাকে তুলে ধরতে পারে।
  • LinkedIn ২০০২ সাল থেকে এর কার্যক্রম পরিচালনা করছে এবং বর্তমানে প্রফেশনাল নেটওয়াকিং এর দিব থেকে এটি সবদিক থেকে সেরা সাইট হিসাবে খ্যাত। এবং এর সক্রিয় ব্যবহারকারী বর্তমানে প্রায় ৩০০ মিলিয়ণ এবং তা ২০০টি দেশে ব্যপক বিস্তার লাভ কারেছে।

facebook-10004452-1404175308-665766394

  • Facebook হল একটি সামাজিক নেটওয়াকিং ওয়েবসাইট যার যাত্রা শুরু হল ২০০৪ সালের ফেব্রুয়ারী মাস থেকে।
  • এখানে ব্যাবহার কারীর আলাদা একটা প্রোফাইল থাকে।
  • বন্ধু বানানো যায়।
  • এসএমএস পাঠানো যায়।
  • ছবি এবং ভিডিও সহকারে পোস্ট শেয়ার করা যায়।
  • বিভিন্ন মানুষের পেজ এ লাইক দেয়া যায়।
  • ফেসবুক সম্পর্কে না জানার মতো খুব কমই নেট ইউজার আছে,তাই এই সম্পর্কে আর কিছু লিখলাম না।

images

  • ফেসবুকের মতই একটি সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইট।
  • ফেসবুকের মতই টুইটারে একটি অ্যাকাউন্ট খোলার পর তাতে স্ট্যাটাস আপডেট, কারো ওয়ালে পোস্ট করা, বা কারো ওয়ালে কমেন্ট ইত্যাদি করা যায়।
  • ফেসবুকের মত টুইটারে ফ্রী সাইন আপ করা যায়।
  • তবে কিছুটা ব্যাতিক্রম রয়েছে।
  • যেমন ফেসবুকে যেটাকে বলা হয় স্ট্যাটাস আপডেট টুইটারে সেটিকে বলা হয় টুইট(Tweet)।
  • ফেসবুকে ফ্রেন্ড রিকোয়েস্ট পাঠানো যায় কিন্তু টুইটারে ফলো করা যায়।
  • আপনি কাওকে ফলো করলে আপনি ঐ ব্যক্তির জন্যে ফলোয়ার এবং কেউ যদি আপনাকে ফলো করে থাকে তবে আপনি হচ্ছেন ফলোয়িং।
  • যেকোন কিছু সম্পর্কে আপনি মাত্র ১৪০ ক্যারেক্টারের পোস্ট করতে পারেন।
  • শেয়ার করতে পারেন ছবি এবং আইডিয়া।
  • ছোট পোস্ট গুলোর জন্যে টুইটার এখন আস্তে আস্তে জনপ্রিয় হয়ে যাচ্ছে।
  • সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং এর একটি বড়ক্ষেত্র নিয়ে টুইটারের অবস্থান।
  • আস্তে আস্তে টুইটার ফেসবুকের মতই জনপ্রিয়তা পাচ্ছে।                                                                                                                                                                    আজ এই পর্যন্তই।

আল্লাহ্‌ হাফেয।

আবার কথা হবে ইনশআল্লাহ্‌।

আপনার মতামত ...