ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে শাস্তি ১৪ বছর!

সমালোচিত ৫৭ ধারাকে বাদ দেবার সুপারিশ করে খসড়া সুপারিশ এসেছে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন-২০১৫ এর। যেখানে সর্বোচ্চ ১৪ বছরের শাস্তির বিধান সহ আছে মাত্রা অনুযায়ী বিভিন্ন মেয়াদের শাস্তি। আইন মন্ত্রণালয়ে এক বৈঠকে রবিবার এই খসড়া উপাস্থাপিত হয় সহকারি সচিব ও খসড়া প্রস্তুত কমিটির সদস্য সচিব আরএইচএম আলাওল কবির দ্বারা।

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে শাস্তি ১৪ বছরপ্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলক এক বিবৃতিতে বলেন,

তথ্যপ্রযুক্তি আইনের ৫৭ ধারায় অপরাধের যে ধরন-সংজ্ঞা ছিল, নতুন আইনে তা আরও স্পষ্ট। আইসিটি আইনের ৫৪, ৫৫, ৫৬, ৫৭ ধারা সম্পর্কে নতুন আইনে আরও ব্যাখ্যা রয়েছে।

অবশ্য প্রস্তাবটি আসে সর্বপ্রথম তথ্যপ্রযুক্তিবিদ মোস্তাফা জব্বার এর পক্ষ থেকে। তিনি বলেন,

সাইবার সিকিউরিটির ধারণাটি পুরোনো। এতে তথ্যপ্রযুক্তির সামগ্রিক বিষয় আওতাভূক্ত হয় না। তাই ভবিষ্যতের কথা ভেবে ডিজিটাল সিকিউরিটি আইন নামকরণ করা হয়েছে ।

এই আইনে সাইবার অপরাধের সর্বোচ্চ সাজা ২০ বছর কারাদণ্ড, সন্দেহজনক কোনো কম্পিউটার জব্দ করতে প্রয়োজনে দরজা-জানালা ভেঙে প্রবেশ করা সহ যেকোনো প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণসহ বিভিন্ন বিষয় সংশোধন ও বাতিলের সুপারিশ এনে আইনটির কাঠামোই বদলে ফেলা হয়েছে বলে জানা যায়।

আপনার মতামত ...