স্বাধীনতা দিবসে ‘হিরোজ অফ ৭১: রিট্যালিয়েশন’ অবমুক্ত

পোর্টব্লিস তাদের নতুন অ্যান্ড্রয়েড গেইম “হিরোজ অফ ৭১: রিট্যালিয়েশন” গুগল প্লে স্টোরে প্রকাশের ঘোষণা দিচ্ছে ২৩ মার্চ সকাল দশটায়, আঁগারগাও বিসিসি অডিটরিয়ামে এক প্রেস কনফারেন্সে। গেমটি রিলিজ হবে মহান স্বাধীনতা দিবসে। এ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন মাননীয় তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের মাননীয় প্রতিমন্ত্রী জনাব জুনাইদ আহ্‌মেদ পলক এমপি। বিসিসি’র সহযোগিতায় এবং পোর্টব্লিসের আয়োজনে এ উদ্যোগটির পৃষ্ঠপোষকতায় আছে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার।

স্বাধীনতা দিবসে 'হিরোজ অফ ৭১রিট্যালিয়েশন' অবমুক্ত

অফ ৭১’ বাংলাদেশে মহান মুক্তিযুদ্ধের ওপর ভিত্তি করে তৈরি করা প্রথম সফল মোবাইল গেইম। গুগল অ্যানালিটিক্স ডাটা অনুযায়ী গেইমটি গুগল প্লে স্টোর থেকে ৩৮০,০০০ বার ডাউনলোড হয়েছে, বর্তমানে গেইমটি খেলছেন ৬৮৪,১৯৬ জন, গেইমটির টোটাল সেশন সংখ্যা ৪৯ লাখ এবং ইউজার রেটিং ৪.৭। গেইমটির নির্মাতারা এবার আরো বড় পরিসরে এ গেইমের নতুন একটি সিক্যুয়েল নিয়ে এসেছেন। এই নতুন গেইমটির নাম ‘হিরোজ অফ ৭১: রিট্যালিয়েশন’। গেইমটি ২৬ মার্চ, ২০১৬ মহান স্বাধীনতা দিবসে রিলিজ পাচ্ছে। গেইমটিতে থ্রিডি গ্রাফিক্স এবং এনিমেশনের মাধ্যমে ১৯৭১ এ মহান মুক্তিযুদ্ধের সময়ের যুদ্ধকালীন পরিবেশকে তুলে ধরা হয়েছে।


গেমের কাহিনিঃ


‘হিরোজ অফ ৭১: রিট্যালিয়েশন’ এর কাহিনী শুরু হয়েছে প্রিক্যুয়েল ‘হিরোজ অফ ৭১’ এর কাহিনিসূত্রের সাথে মিল রেখে। শামসু বাহিনি বরিশালে শনির চরে একটি পাকিস্তানি ক্যাম্প দখল করে এবং শত্রুর আক্রমণের বিরুদ্ধে দুর্বার প্রতিরোধ গড়ে তোলে। যুদ্ধের শেষে তারা জয়লাভ করলেও দলের সদস্য সজল শহীদ হয়। শামসু বাহিনি সহযোদ্ধার মৃত্যুতে প্রতিশোধের শপথ নেয়। এবার তাদের সামনে নতুন মিশন। শনির চর থেকে কিছু দূরে উল্লার হাটে একটি পাকিস্তানি টর্চার ক্যাম্পে কয়েকজন নারীকে অপহরণ করে বন্দী করে রাখা হয়েছে। এই বীরাঙ্গনাদের কোন প্রাণহানি ছাড়া উদ্ধার করে নিয়ে আসাটা এখন শামসু বাহিনির সামনে চ্যালেঞ্জ। এই টর্চার ক্যাম্পে আক্রমণের সময় তাদের পরিচয় হয় অনিলার সাথে। মেয়েদের নিয়ে একটি গেরিলা গ্রুপ গঠনের সময় অনিলা পাকিস্তানি সৈন্যদের হাতে ধরা পড়ে।

স্বাধীনতা দিবসে 'হিরোজ অফ ৭১ রিট্যালিয়েশন' মুক্ত

অনিলা শামসু বাহিনি তে যোগ দেয় পরের মিশনে। এবার কাছেই আন্ধারমাণিক খালের ওপরে থাকা পাকিস্তানি কনভয়ের ব্যবহৃত একটি ব্রিজ উড়িয়ে দিতে হবে। কিন্তু এই মিশনের সময় বাধে বিপত্তি। নীরবে অগ্রসর হতে থাকা শামসু বাহিনির অবস্থান জেনে যায় পাকিস্তানি সৈন্যরা। এখন শামসু বাহিনির সামনে একটিই পথ, “মরো নয়ত মারো”। গেমটির কাহিনী, চরিত্র, ঘটনা, মিশন এবং ঘটনাস্থল কাল্পনিক।


গেমপ্লেঃ


“হিরোজ অফ ৭১” গেমটির উত্তরসূরী “হিরোজ অফ ৭১: রিট্যালিয়েশন” -এর গেম-প্লে হতে আলাদা। এতে গেমার গেমের চরিত্রগুলোকে নিয়ে যুদ্ধ করার সময় জায়গা বদল করতে এবং এগিয়ে যেতে পারবেন। এতে এখন একাধিক লেভেলও যোগ হয়েছে। প্রথম লেভেলটিতে অপহৃত নারীদের উদ্ধার করতে হবে এবং পরের লেভেলটিতে একটি গুরুত্বপূর্ণ ব্রিজ উড়িয়ে দিতে হবে। লেভেলগুলো একটি অন্যটির সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ এবং গেমের মূল গল্প নির্ভর। লেভেলগুলোতে উন্নত গ্রাফিক্স এবং ভিজ্যুয়াল যোগ করা হয়েছে। দিন ও রাতের পরিবেশ এবং নতুন টেরাইনও যোগ করা হয়েছে গেমটিতে।


আমাদের লক্ষ্যঃ


গেইমটির মাধ্যমে দেশের নতুন প্রজন্মকে আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধ এবং দেশীয় সংস্কৃতির প্রতি আরো আগ্রহী করে তোলা আমাদের অন্যতম প্রধান লক্ষ্য। মুক্তিযুদ্ধ ভিত্তিক এই গেমটি খেলার সময় গেমারকে একই সাথে মুক্তিযুদ্ধের ব্যাপারে সচেতন করে তোলা এবং বাংলাদেশের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য সম্পর্কে আরো আগ্রহী করে তোলাও এ গেমটি তৈরীর পেছনে অন্যতম উদ্দেশ্য।

ভবিষ্যত পরিকল্পনাঃ
গেমটিকে আরো বড় পরিসরে, এবং মহান মুক্তিযুদ্ধের গুরুত্বপূর্ণ ঘটনাগুলোকে তুলে ধরে এমন নতুন মিশন সহকারে সাজানোর পরিকল্পনা রয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.