বায়োমেট্রিক সিম নিবন্ধনের বিপক্ষেই বেশি

নতুন বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে সিম নিবন্ধন কার্যক্রম কতটা সাড়া পাচ্ছে এবং গ্রাহকরা এ নিয়ে মতামত কি তা নিয়ে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম তাদের প্রযুক্তি পাতায় একটি জরিপ চালায়। জরিপ থেকে উঠে আসা ফলাফল থেকে নিচের গ্রাফটি তৈরি করা হয়েছে-

বায়োমেট্রিক পদ্ধতিজরিপের গ্রাফ সারনি থেকে দেখা যাচ্ছে ইতোমধ্যে বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে সিম নিবন্ধন করে ফেলেছেন এমন গ্রাহক সংখ্যা ৩৩ শতাংশ, এখনো করেননি তবে করবেন এমন গ্রাহকের সংখ্যা ১৩ শতাংশ, সিদ্ধান্তহীন্তায় ভুগছেন ১২ শতাংশ, নতুন এই পদ্ধতিতে নিবন্ধন করবেনই না এমন মতামত দিয়েছেন প্রায় ৪২ শতাংশ মোবাইল গ্রাহক।

এ খবর প্রকাশের পূর্ব পর্যন্ত এই জরিপে অংশ নেন মোট ২৫০ জন। বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম এর প্রযুক্তি পাঠকরা অনলাইন রেজিস্ট্রেশন ছাড়াই এ জরিপে অংশ নিয়েছেন। সরকার ৩০ এপ্রিল রাত ১০টা পর্যন্ত এই পদ্ধতিতে সিম নিবন্ধন করা যাবে বলে জানালেও গতকালের সংবাদ সম্মেলনে টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রি তারানা হালিম আরও এক মাস সময় বৃদ্ধির ঘোষণা দেন। ২০১৫ সালের ১৬ ডিসেম্বর দেশে আনুষ্ঠানিকভাবে যাত্রা শুরু করে বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে সিম পুনঃ নিবন্ধন কার্যক্রম। নিবন্ধন না করা সিমগুলো প্রতিদিন তিন ঘণ্টার জন্য বন্ধ করে দেওয়া হবে বলে হুশিয়ারি দিয়েছেন টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম। তিনি বিটিআরসির সংবাদ সম্মেলনে বলেন, যে সকল সিম এ নির্দেশমত নিবন্ধন করা হবে না সে সকল সিম বা রিম ৩১ মে রাত ১২টার পর কোনো প্রকার সতর্ক সঙ্কেত ছাড়াই স্বল্প সময়ের জন্য নয়, আমরা সম্পূর্ণভাবে অনিবন্ধিত সিমটি ডি-অ্যাকটিভ করে দেব।

 

মেহেদী হাসান পলাশ

Mehedi Hasan Polash ভালোবাসি প্রযুক্তি সম্পর্কে জানতে ও জানাতে, এই ভালো লাগা থেকেই যোগ দেওয়া প্রযুক্তি ব্লগিংয়ে। পাশে পেয়েছি টেকমাস্টার ব্লগ কমিউনিটি, দিকনির্দেশনা দিতে শ্রদ্ধেয় মেজবা উদ্দিন ভাই। ব্লগিং জগতের সবচেয়ে বড় যে পাওয়া তা হচ্ছে তথ্য, ব্লগিং এর জন্য প্রতিদিনই নিজেকে বেশি বেশি তথ্য জানতে হচ্ছে যা অনেকটা নেশার মত হয়ে দাঁড়িয়েছে। আর জীবনটাই তো শেখার জন্য, জানার জন্য। বর্তমানে নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটিতে মার্কেটিং ও ইন্টারন্যাশনাল বিজনেস উভয় বিষয়ে (বিবিএ) অধ্যায়নরত। প্রয়োজনে যোগাযোগ - মেইলঃ mpolash@icloud.com গুগল প্লাস

Leave a Reply

Your email address will not be published.