টরেন্ট ডাউনলোড :টরেন্ট ব্যবহার-২

ধারাবাহিক টরেন্ট ব্যবহার সিরিজের দ্বিতীয় পর্বে আজকে আমরা শিখবো কিভাবে টরেন্ট ডাউনলোড করতে হয়। এর আগের পর্বে আমরা শিখেছিলাম টরেন্ট কি কিভাবে কাজ করে। তা চলুন দেখি কিভাবে আমরা টরেন্ট ব্বিযবহার করে ভিন্ন ফাইল- মুভি -গেম ইত্যাদি ডাউনলোড করতে পারবো।

 

প্রথমেই দেখা যাক ডাউনলোডার সফটওয়্যার গুলোকে অর্থাৎ যেগুলো দিয়ে আপনি টরেন্ট ডাউনলোড করতে পারবেন। এর জন্য রয়েছে utorrent, bittorrent,BitLord ইত্যাদি । তাই প্রথমেই ডাউনলোড করে নিন টরেন্ট ক্লায়েন্ট। নিচে কিছু টরেন্ট ক্লায়েন্টের ডাউনলোড করার লিংক দিলাম।

Utorrent: Download or Download  utorrent টরেন্ট ক্লায়েন্ট দের মধ্যে অন্যতম জনপ্রিয় সফটওয়্যার।উইন্ডোজের পাশাপাশি মোবাইল-ম্যাক-লিনাক্স ভার্সন ও আছে এর।

Bittorrent: Download or Download Bittorrent ও utorrent এর মতোনই জনপ্রিয়। অনেকেই ইন্টারফেসের জন্য Bittorrent ব্যবহার করেন।

Bitlord: Download খুব একটা জনপ্রিয় না হলেও টরেন্ট ডাউনলোডের কাজ গুলো ভালোভাবেই করতে পারবেন।

এছাড়া আরো আছে rTorrent, BitThief, FlashGet ইত্যাদি। যেকোনো একটা ডাউনলোড করে ইন্সটল করে নিন। ডাউনলোড করার সময় স্ট্যাবল ভার্সন গুলোই ডাউনলোড কইরেন। বেটায় মাঝে মাঝে অনেক বাগ পাওয়া যায়। তবে আমি বলবো Bittorrent বা utorrent ব্যবহার করতে।

টরেন্ট সাইট 

এবার প্রশ্ন হলো ডাউনলোড করবো কই থেকে? চলুন দেখে নেই জনপ্রিয় কিছু টরেন্ট ডাউনলোড করার সাইট। এগুলো থেকে আপনি মুভি-গেম-জনপ্রিয় টিভি সিরিজ সবই খুজে পাবেন। অনেকেই বলে যে জিনিস টরেন্টের খুজে পাওয়া যায়না সেগুলো সারা ওয়েবে ও খুজে পাওয়া যাবেনা।

  1. ThePirateBay
  2. KickAssTorrents
  3. Torrentz
  4. ExtraTorrent
  5. YifyTorrents
  6. BitSnoop
  7. IsoHunt
  8. SumoTorrent
  9. Demonoid
  10. RarBG

এই সাইট গুলোতে ডাউনলোডের পাশাপাশি আপনি আপলোড ও করতে পারবেন তবে তার জন্য আপনাকে অ্যাকাউন্ট খুলে নিতে হবে। 

দেশি টরেন্ট সাইট 

আগেই বলেছি টরেন্ট কাজ করে  p2p সিস্টেমে। কাজেই দেশের ভেতরের ডিভাইসগুলোর সাথে আপনার ডিভাইসের দুরত্ব কম হওয়ায় স্পীড ও বেশি থাকবে। আর যদি BDIX কানেক্টেড হয় আর BDIX connected সাইট থেকে ডাউনলোড করে থাকেন তাহলে তো কথাই নাই। সার্ভারের মতোন স্পীড পাবেন। এবার চলুন দেখে নেই দেশি টরেন্ট সাইটগুলো ।বেশির ভাগের ই অ্যাকাউন্ট খোলা লাগে। তবে ECTTorrent এর মতো কয়েকটি সাইটে অ্যাকাউন্ট না খুলেও ডাউনলোড করতে পারবেন। কিন্তু Torrentbd এর মতো সাইটে একটা নির্দিষ্ট পরিমানে ডাউনলোডের সাথে নির্দিষ্ট পরিমান আপলোড ও থাকতে হবে। একেক সাইটে এজন্য একেক রকমের রুলস। টরেন্ট বিডিতে অ্যাকাউন্ট খুলার জন্য তাদের ফেসবুক গ্রুপে আপনাকে রিকোয়েস্ট করতে হবে।

  1. TorrentBDhttp://www.torrentbd.com/
  2. CrazyHD –   http://www.tejpata.org/ – http://crazyhd.com/
  3. OntohinBD– http://www.ontohinbd.com/
  4. Azibtorrenthttp://www.azibtorrent.com/ (closed maybe for a short time)
  5. ETC torrent- http://etctorrent.com/

ডাউনলোড 

একটা কথা মনে রাখবেন সীডার যতো কম হবে আর লীচার যতো বেশি থাকবে ততো স্পীড কম পাবেন। তাই কোনো ফাইল নামানোর আগে বিভিন্ন সাইটে খুজে সীডার লিচারের রেটিও দেখতে পারেন । আর জনপ্রিয় মুভিগুলো প্রায় সব সাইটেই পাবেন। গেম নামানোর সময় কমেন্ট গুলো দেখে নিবেন তাহলেই হবে ।  কারন অনেকেই গেম আপলোড দেয় কিন্তু সেগুলো কোনো টেকনিক্যাল প্রবলেমের কারনে চলেনা। তাই কমেন্ট দেখেই নামাবেন তাতে সময় ও বাচবে আর ডেটা ও  ।

 

১। প্রথমে আপনার কাঙ্ক্ষিত সাইটে সার্চ দিয়ে ফাইলটি খুজুন । আপনি চাইলে গুগল ও করতে পারেন। দেখবেন একই মুভি বিভিন্ন ফরম্যাটে পাবেন। নতুন মুভি হলে সাধারনত ক্যাম প্রিন্ট পাওয়া যায় । আর পুরোনো হলে অনেক ধরনের প্রিন্ট পাওয়া যায়। দেখুন আমি kickass.to তে avater search দিয়েছিলাম। দেখুন অনেক ফরম্যাটে মুভিটি পেয়েছি । এখন যেই ফরম্যাট টা ডাউনলোড করতে চান সেটার সাথে থাকা ছবির মতোন ডাউনলোড বা ম্যাগনেট ডাউনলোড এ ক্লিক করুন। ম্যাগনেটে ক্লিক করলে আপনার টরেন্ট ক্লায়েন্ট অটোমেটিকলি ওপেন হয়ে ফাইলটি লোড করবে। আর যদি ডাউনলোড অপশনটি ক্লিক করুন। তাহলে একটি .torrent ফাইল ডাউনলোড হবে। যেটা ওপেন করলে ম্যাগেনেটের মতোন ই যে ফাইল টি ডাউনলোড হবে তা ২নাম্বার চিত্রের মতো দেখাবে।

2

 

২। ম্যাগনেট ডাউনলোড ক্লিক করলে বা ডাউনলোড করা টরেন্ট ফাইল ওপেন করলে নিচের মতোন  দেখতে পারবেন। ১ নির্দেশিত বক্সের ওখানে আপনি কোথায় ফাইল টি স্টোর করবেন তা সিলেক্ট করতে পারবেন।  এর নিচেই creat subfolder এ ক্লিক করা থাকলে আপনার ফাইলটি একটি নতুন সাব ফোল্ডারে ওপেন হবে। আর ২ নং নির্দেশিত স্থানে আপনি আপনার প্রয়োজনীয় ফাইল গুলো টিক রেখে বাকিগুলো আনচেক করে দিতে পারবেন। এতে অনাকাংখিত ফাইলগুলো আর ডাউনলোড হবেনা। এরপর ওকে চাপ দিয়ে দিন।

 

4

 

৩। এরপর নিচের মতোন দেখবেন ডাউনলোড শুরু হয়ে যাবে।

 

5

 

কিছু জিনিস মনে রাখবেন যদি টরেন্টটি ডাউনলোড দেওয়ার অনেকক্ষন পরেও ডাউনলোড শুরু না হয় তাহলে বুঝবেন ফাইলটির যথেষ্ট পরিমান সীডার নেই। আর নাহয় যেখান থেকে আপলোড করা হয়েছে সেই কম্পিউটারটি বন্ধ(একমাত্র আপলোডারের ক্ষেত্রে) । এমন ও হতে পারে আপলোডার ফাইল ডিলেট করে দিয়েছেন। এসব ক্ষেত্রে বেস্ট সাজেশন হলো অন্য টরেন্ট খুজা। কোনো সমস্যা হলে কমেন্ট করতে পারেন।

 

এর পরের পর্বে আমরা দেখবো কিভাবে টরেন্ট ক্রিয়েট করতে হয় এবং কিভাবে তা আপলোড দিতে হয়। আজ এটুকুই আর যারা প্রথম পর্ব পড়তে চান তাদের নিচে লিংক দিয়ে দিলাম ।

পর্ব ১ঃ টরেন্ট কি এবং কিভাবে কাজ করে 

উদয়

সবার মধ্যেই কিছু না কিছু থাকে,সেই কিছু খোজার প্রচেষ্টাতেই আছি। ভালো লাগে টেকনোলজি,তাই টেক-মাস্টারব্লগের সাথে সম্পৃক্ততা ।

আপনার মতামত ...