চিন্তা অথবা স্পর্শ করেই কথার আদান-প্রদান

‘শুধু চিন্তা করে কিংবা স্পর্শ করেই মানুষ একে অন্যের সাথে যোগাযোগ করবে। পরস্পরের সাথে যোগাযোগের এখনকার মতো লেখালেখি কিংবা কথা বলার প্রয়োজনই হবেনা। মানুষের মস্তিষ্ক পড়তে সক্ষম কিংবা স্পর্শ বুঝতে সক্ষম প্রযুক্তি নিয়ে আসবে ফেসবুক’এমন একটা সময় ছিল যখন মানুষ পায়রা দিয়ে বার্তা আদান-প্রদান করতো। দূর দূরান্তে উড়ে বার্তা পোঁছে দিয়ে আসতো পায়রা গুলো।
একটা সময় টেলিফোন আবিষ্কার হয়।
ক্রমান্বয়ে মানুষের হাতে হাতে এখন মোবাইল ফোন। আর এই মোবাইল ফোন এর মাধ্যমেই মানুষ এখন সমগ্র বিশ্ব তার হাতের মুঠে নিয়ে ঘুরে ইন্টারনেট এর কল্যণে।
এই ইন্টারনেট এর যেই ক্ষেত্র গুলোতে মানুষের সবছেয়ে বেশী বিচরণ তেমনই একটা ক্ষেত্র হলো ”ফেসবুক”। ছোট-বড় সবাই ফেসবুক ব্যবহার করে থাকে।
মানুষ তার হাসি-কান্না,সুখ-দুঃখ,জয়-পরাজয়,আনন্দ-বেদনা সব কিছু ফেসবুক এ শেয়ার করে থাকে।
আর যোগাযোগ রক্ষার এক অন্যতম হাতিয়ার হিসেবে ফেসবুক এখন সবার কাছেই প্রিয়।

সম্প্রতি জানা যায়, শুধু চিন্তা করে কিংবা স্পর্শ করেই মানুষ একে অন্যের সাথে যোগাযোগ করবে। পরস্পরের সাথে যোগাযোগের এখনকার মতো লেখালেখি কিংবা কথা বলার প্রয়োজনই হবেনা। মানুষের মস্তিষ্ক পড়তে সক্ষম কিংবা স্পর্শ বুঝতে সক্ষম প্রযুক্তি নিয়ে আসবে ফেসবুক। ক্যালিফোর্নিয়ায় সফটওয়্যার নির্মাতাদের এক সম্মেলনে তেমনটিই ধারণা দিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি । গবেষকদের একটি দল এ নিয়ে কাজও শুরু করে দিয়েছে। মানুষের মস্তিষ্ক পড়তে সক্ষম হবে এমন প্রযুক্তি উদ্ভাবনের চেষ্টা করছে তাঁরা। কোম্পানিটি বলছে মস্তিষ্ক নিয়ন্ত্রিত কম্পিউটার যোগাযোগই একসময় সাধারণ যোগাযোগ মাধ্যমে পরিণত হবে। আর এ প্রযুক্তির মাধ্যমে বিশেষ ভাবে উপকৃত হবে যারা দৃষ্টি শক্তিহীন তারা। তখন তারা টাইপ না করেই লিখতে পারবে, এমনটি অন্যের কাছে পাঠাতে পারবে।

আপনার মতামত ...