অনলাইনে কর পরিশোধঃ ই-পেমেন্টব্যবস্থায় জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের কর

অনলাইনে কর পরিশোধের নিমিত্তে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডে (এনবিআর) ই-পেমেন্টব্যবস্থা চালু করেছে। এ নিয়ে বিস্তারিত জানাচ্ছেন টেকপ্রেমী মাহমুদ রতন…

যেকোনো সময় যেকোনো স্থান থেকে’ স্লোগানকে সামনে রেখে চালু হয়েছে এই ই-পেমেন্ট ব্যবস্থা। এ ব্যবস্থা চালু হওয়ার কারনে করদাতারা ঘরে বসেই কর পরিশোধ করতে পারবেন। প্রাথমিক অবস্থায় ২৬টি ব্যাংকের মাধ্যমে সপ্তাহের সাত দিনই যেকোনো সময় এ পদ্ধতিতে কর পরিশোধ করা যাবে।

এতে সমন্বয়কের ভূমিকায় থাকবে এনবিআর, বাংলাদেশ ব্যাংক, সোনালী ব্যাংক ও মহাহিসাব নিরীক্ষকের অফিস (সিএজি)।

অনলাইনে কর পরিশোধ পদ্ধতিতে ‘প্রসেসরের’ ভূমিকায় থাকবে কিউ-ক্যাশ। এনবিআর নির্ধারিত যেকোনো ব্যাংকে ক্রেডিট, ডেবিট বা ভিসা কার্ডের মাধ্যমে অর্থ পরিশোধ করলে তা এনবিআরে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তির নামে জমা হবে। এ পদ্ধতি বাস্তবায়নে অর্থায়ন করছে বিশ্বব্যাংকের সহযোগী সংস্থা ইন্টারন্যাশনাল ফিন্যান্স করপোরেশন (আইএফসি)।

ই-পেমেন্টের সমন্বয়ক ও এনবিআরের কর পরিদর্শন পরিদফতরের মহাপরিচালক কানন কুমার রায় বলেন, রাজস্ব বোর্ড সচেতনতা বাড়ানোর পাশাপাশি করভীতি দূর করার জন্য কাজ করে যাচ্ছে। এরই ধারাবাহিকতায় ই-পেমেন্ট চালু হয়েছে। এটি পুরোপুরি বাস্তবায়িত হলে করদাতারা হয়রানিমুক্তভাবে কর দিতে পারবেন। কর পরিশোধের পর রিটার্ন জমা দেয়ার সময় করদাতাদের ই-পেমেন্টে কর পরিশোধের চালানের নম্বর এনবিআরে জমা দিতে হবে। প্রবাসীরাও বিশ্বের যেকোনো স্থান থেকে এ ব্যবস্থায় কর দিতে পারবেন।

ডিজিটাল বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠায় এটি আর একটি যুগান্তকারী পদক্ষেপ। পর্যায়ক্রমে দেশের সর্বস্তরে চালু হোক এই ই-পেমেন্ট ব্যবস্থা। নানা বর্ণের দূর্নীতি রোধেও এই ব্যবস্থা ভূমিকা রাখবে।

তথ্য প্রযুক্তিতে সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান প্রাণন লি: প্রযুক্তির এই সর্বোচ্চ ব্যবহারকে কাজে লাগিয়ে একটি সুন্দর বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্ন দেখে। প্রযুক্তিগত ভাবে বাংলাদেশ আরো সমৃদ্ধ এবং পাশাপাশি প্রযুক্তিভিত্তিক বিপুল কর্মসংস্থান তৈরির কাজ করে যাচ্ছে প্রাণন।

আপনার মতামত ...