২০১৮ সালের সেরা ৭টি ফ্রি ভিডিও এডিটিং অ্যাপস

আমরা প্রতিদিন অনেক ছবি এবং ভিডিও করে থাকি। এইসব কিছু সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম বা অন্য কোনো জায়গায় ছাড়ার আগে আমরা তা এডিট করে থাকি। এডিট করার জন্য বিভিন্ন ধরণের অ্যাপস ব্যবহার করে থাকি। আপনাদের সাথে নিয়ে এসেছি ২০১৮ সালের সেরা ৭টি ভিডিও এডিটিং অ্যাপস। 

১। Filmora Go

এটি এমন একটি অ্যাপ যার মাধ্যমে অসাধারণ ভিডিও এডিটিং করা যাবে। এটি দিয়ে ১ঃ১ ইনস্টাগ্রাম ভিডিও, ১৬ঃ৯ ইউটিউব ভিডিও করা যাবে। এছাড়া রিভার্স ভিডিও, স্লো মোশন, লেখা যুক্ত করা ছাড়াও আরো অনেক ফিচার রয়েছে। যা ব্যবহার করে খুব সহজে একটি সুন্দর ভিডিও তৈরী করা সম্ভব।

এই অ্যাপের মাধ্যমে খুব সহজে ভিডিও কাটা, থিম, মিউজিক ইত্যাদি আরো অনেক কিছু খুব সহজে যুক্ত করা যায়।

এটিতে কিছু ফিচার টাকা দিয়ে কিনতে হয় তবে ফ্রিতে যেসব ফিচার রয়েছে তা দিয়েই একটি সুন্দর ভিডিও এডিট করা সম্ভব। এডিট করা ভিডিও সরাসরি গ্যালারিতে বা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আপলোড করা যাবে। তবে ভিডিও তে FilmoraGo ওয়াটারমার্ক থাকবে। ওয়াটারমার্ক ছাড়া ভিডিও পেতে চাইলে প্রিমিয়ামে আপগ্রেড করতে হবে। তাছাড়া ক্র্যাক তো আছেই😉।

২। Adobe Premiere Clip

এই অ্যাপটি দিয়ে আমরা খুব সহজে ভিডিও এডিট করতে পারবো। এটি ব্যবহার করা যেমন সহজ তেমনি খুব দ্রুত সুন্দর ভিডিও এডিট করা সম্ভব। এটি স্বয়ংক্রিয়ভাবে আপনার সিলেক্ট করা ফটো বা ভিডিও ক্লিপ এডিট করতে পারে। এই অ্যাপটি দিয়ে আপনি ভিডিও কাটা, ট্রিমিং, ট্রানজিশেশন, মিউজিক, ফিল্টার, থিম ইত্যাদি আরো অনেক ফিচার রয়েছে।

এইটা ফ্রিতে ডাউনলোড করা যাবে এবং এতে কোনো বিজ্ঞাপন থাকছে না। ফলে কোনো ঝামেলা ছাড়াই ভিডিও এডিট করা যাবে। এই অ্যাপ দ্বারা এডিট করা ক্লিপ গ্যালারি বা সরাসরি শেয়ারও করা যাবে।

৩। VideoShow 

অ্যান্ডয়েডের জন্য সব থেকে সেরা একটি ভিডিও এডিটিং অ্যাপ। এর রয়েছে ইউজার ফ্রেন্ডলি ইন্টারফেইস। এটি ব্যবহার করা অনেক সহজ। এতে রয়েছে অনেক দরকারী ফিচার জা ব্যবহার করে আপনার ভিডিও কে আরো সুন্দরভাবে ফুটিয়ে তুলতে পারবেন। এতে ৫০টিরও বেশি থিম রয়েছে। থিম ব্যবহার করার ফলে ভিডিওর কোয়ালিটির কোনো পরিবর্তণ হবে না। এই অ্যাপটি সকল অ্যান্ডয়েড ডিভাইসে সাপোর্ট করে। এটির রয়েছে প্রিমিয়াম ভার্সন তার যদি প্রয়োজন হয় তাহলে গুগলে সার্চ করে খুঁজে নিতে পারেন।

৪। PowerDirector Video Editor 

এই অ্যাপটি দিয়ে প্রফোশনালদের মত করে ভিডিও এডিট করতে পারবেন। আমি নিজেও এটি ব্যবহার করে থাকি। এটি ভালোভাবে শেখার জন্য আপনাকে একটু টাইম দিতে হবে। পুরোপুরি শেখা শেষ হলে এটি ব্যবহার করে খুব অল্প সময়ে অনেক সুন্দর ভিডিও এডিট করতে পারবেন। এতে রয়েছে ৩০টির মত থিম যা ব্যবহার করে ভিডিওকে আরো সুন্দরভাবে ফুটিয়ে তুলতে পারবেন।

এতি ব্যবহার করে সবুজ স্কিন ভিডিও খুব সহজে এডিট করতে পারবেন। এটি ফ্রি এবং প্রিমিয়াম ২টি ভার্সনে পাবেন। তবে ফ্রি ভার্সনেই সকল ফিচার পাবেন। তবে এতে ভিডিও তে অ্যাপটির ওয়াটারমার্ক থকবে। অ্যাপটি দিয়ে ৪কে ভিডিও বানানো সম্ভব। তার জন্য আপনাকে প্রিমিয়াম ভার্সনে আপগ্রেড করতে হবে। এটি সকল অ্যান্ডয়েড ডিভাইসে সাপোর্ট করবে।

৫। KineMaster

এই অ্যাপটিতে রয়েছে পাওয়ারফুল অনেক ফিচার। এটি দিয়ে অনেক সুন্দর ভিডিও এডিট করা সম্ভব খুব কম সময়ে। প্রফোশনলাভাবে ভিডিও এডিট এটি দ্বারা করা সম্ভব।

তবে প্রিমিয়াম ভার্সনে আরো অনেক অসাধারণ ফিচার রয়েছে। তা আপনি খুব সহজে ডাউনলোড করে নিতে পারেন।

৬। VivaVideo

গুগল প্লেস্টোরে সব থেকে বেশি ডাউনলোড হওয়া ভিডিও এডিটিং অ্যাপ হলো VivaVideo। পুরো পৃথিবী জুড়ে ২০০ মিলিয়নের বেশি মানুষ এটি ব্যবহার করে থাকে।

এই অ্যাপটি দিয়ে প্রোফেশনাল লুকিং ভিডিও তৈরী করা যাবে খুব সহজে। এতে রয়েছে ১০০ টির বেশি থিম, স্টিকার, ফিল্টারশ আরো অনেক ফিচার। এটি দিয়ে স্লো মোশন ভিডিও তৈরী করা যাবে। এছাড়া আরো অনেক ফিচার রয়েছে ভিডিও সুন্দর করে তৈরী করার জন্য।

৭। Funimate

এটি দিয়ে আপনি খুব সহজে ফানি ভিডিও তৈরী করতে পারবেন। এটি স্বয়ংক্রিয়ভাবে অনেক ফানি ভিডিও বানাতে পারে। এতে রয়েছে ২০টি ভিডিও ইফেক্ট। শর্ট ভিডিও বানানোর জন্য এটি একটি ভালো অ্যাপ।

এটি দিয়ে সরাসরি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভিডিও আপলোড করতে পারবেন। এটি ফ্রি তবে বিরক্তকর অ্যাডস তো আছেই।

আশা করি সবগুলো অ্যাপসই আপনাদের কাছে ভালো লাগবে। সবগুলো অ্যাপসেরই প্রিমিয়াম সংস্করণ রয়েছে যদি প্রিমিয়ামে দরকার হয় তাহলে গুগলে সার্চ করতে পারেন অথবা কমেন্টে জানাতে পারেন। ধন্যবাদ।

ইরফান

জানতে এবং জানাতে ভালোবাসি।

আপনার মতামত ...