অ্যান্ড্রয়েড জগতে প্রবেশ ও আমার সেটটির রিভিউ

নোকিয়ার ব্যবহার অভিজ্ঞতা নিয়ে শুরু করা টেকপ্রেমী তুসিন আহমেদ এখন এন্ড্রয়েড জগতে প্রবেশ করেছেন সনি এক্সপেরিয়া দিয়ে, তার সাথেই শুনুন সেট  কিনার আগে ও পরের জল্পনা কল্পনা নিয়ে।

আমার জীবনের প্রথম ফোন নকিয়া।সবশেষ নকিয়ার ই ৬৩ ব্যাবহার করতাম।সার্ভিস খুব ভাল পাচ্ছিলাম।অ্যান্ড্রোয়েড আসার আগে নকিয়াকে চরম সেট মনে হত।কিন্তু একটা অ্যাপস ইস্টল করতে গেলে নকিয়ায় ১২টা বেজে যেত।
সবাই দেখি অ্যান্ড্রোয়েড সেট ব্যাবহার এবং ব্লগে ,বন্ধুদের হাতে অ্যান্ডোয়েড দেখে এবং বিভিন্ন রিভিউ পড়ে ঠিক করলাম পরবতীতে সেট নিলে অবশ্যই অ্যান্ড্রোয়েড নিব।
যেই কথা সেই কাজ ।টাকা পয়সা মেসেজ করলাম।আমার চার-পাচ মাসের টিউশনির জমানো টাকা নিয়ে
২৯/১১/২০১২ তারিখে সিয়াম ,মেহিদী এবং ইমনকে নিয়ে চলে গেলাম বসুন্ধায়সিটিতে।এর আগে অনেক সেট নিয়ে গবেষনা শুরু হয়েছিল।কোন সেটি ভাল হবে।আমি বাজেট ছিল ১৮ হাজার টাকা।অনেক দিক বিবেচনা করে আমার কাছে বেস্ট মনে হয়েছে sony xperia sola
আমার বাজেটের মধ্যে সে সেটগুলো পছন্দের তালিকায় ছিল।

sony xperia u
sony xperia go
sony xperia sola
sony xperia neo l
htc one v

এরপর গুলো হল সেটগুলোকে নিয়ে গবেষনা।এই সেটগুলোর মধ্যে কোনটি ভাল।
সনি এমন একটা কাজ করছে কোন সেটই পরিপূর্ন সব কিছু দেয় নি।সেট গুলোর মধ্যে একটা না একটা যেমন:
xperia u তে sd card ব্যাবহার করা যায় না।আর ঠিক আছে।
sola তে sd card ব্যাবহার করা যায় কিন্তু ফন্ট ক্যামেরা নাই L
neo l এর প্রসেসর 1 core এ এবং বিল্টইন Fm রেডিও নাই।এবং ক্যামেরায় বেশ কয়েটি অপশন নেই যা sola তে আছে।
সব দিক বিবেচনা করে আমার কাছে sola ভাল লেগেছে ।

এরপর কিনে ফেললাম সোলা।
দাম পড়ল ১৮হাজার টাকা।
এবার দেখা যাক কি কি আছে আমার সেটিতে।ছোট খাট একটা রিভিউ দেবার চেষ্টা করব।

DISPLAY Type LED-backlit LCD, capacitive touchscreen, 16M colors
Size 480 x 854 pixels, 3.7 inches (~265 ppi pixel density)
Multitouch Yes, up to 4 fingers
Protection Scratch-resistant glass
– Floating touch display
– Sony Mobile BRAVIA Engine

floating touch display বলে একটা অপশন আছে।ব্যাপার আমার সবচেয়ে বেশি ভাল লেগেছে।স্কীনে স্পর্শ না করেও স্কীনে লাইভ ওয়ালপেপার নড়াচড়া করতে পারবেন।নিচের ভিডিওটি দেখলে ব্যাপারটি আরও ভাল করে বুঝতে পারবেন।
এই অপশনটি একমাএ sola তেই আছে।

MORY Card slot microSD, up to 32 GB
Internal 8 GB (5 GB user available), 512 MB RAM

আমার মনে হয় না কাউও এর চেয়ে বেশি মেমোরি দারকার হবে মোবাইলে।

CAMERA Primary 5 MP, 2592х1944 pixels, autofocus, LED flash, check quality
Features Geo-tagging, touch focus, face and smile detection, 3D sweep panorama, image stabilization
Video Yes, 720p@30fps, continuous autofocus, video light,check quality
Secondary No

এর ক্যামেরায় আমি কোন সমস্যা হয়নি।৫মেগার ক্যামারয় ভালই ছবি তুলা যায়।এই ছবিটি দেখুন

এটা গেল দিনের ছবি।এবার দেখুন রাতে কেমন ছবি আসে।রাতের ছবিগুলোও আমার ভাল লেগেছে।৫ মেগার তুলনায় ভালই হয়।

শুক্রবারে এক কাজিনের বিয়েতে তুলা ছবি।

এবার আসি ভিডিও নিয়ে।এর ভিডিও আমার কাছে ভাল মনে হয়েছে।720p মানের ভিডিও করা যায়।

CPU Dual-core 1 GHz Cortex-A9
GPU Mali-400
Sensors Accelerometer, proximity, compass
Messaging SMS (threaded view), MMS, Email, IM, Push Email
Browser HTML5, Adobe Flash
Radio Stereo FM radio with RDS
GPS Yes, with A-GPS support
Java Yes, via Java MIDP emulator
Dual-core 1 GHz হবার কারনে দ্রুতই অনেক কাজ করা যায়।hd গেমসগুলো আটকিয়ে যায় না

os:Android OS, v2.3 (Gingerbread), planned upgrade to v4.0
অড্রোয়েড এর নতুন ভার্শন জেলি বিন আপডেট এখনো আসে নি।অফিসিয়ার ভাবে।

BATTERY Standard battery, Li-Ion 1320 mAh
Stand-by Up to 470 h (2G) / Up to 475 h (3G)
Talk time Up to 6 h (2G) / Up to 5 h (3G)
Music play Up to 40 h
এবার আসি সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ন ব্যাপারে।সোলার সবচেয়ে সে ব্যাপারটি আমার ভাল লাগে নি তাহলে fixed battery ।আপনি ব্যাপারি খুলতে পারবেন না।
এই নিয়ে আমি বেশ ঝামেলায় পড়েছিলাম।যদি কোন কারনে ব্যাটারী নষ্ট হয়ে যায় তাহলে কি হবে?? পড়ে খোজঁ নিয়ে জানতে পারলাম ব্যাটারী ডেমেজ হয়ে গেল নতুন করে ব্যাটারী লাগনো যায়।তবে এতে টাকা বেশি খরচ হবে।বসুন্ধায় একটা শপে আমি এটি জানতে চেয়েছিলাম। তারা জানাল নতুন করে ব্যাটারি লাগতে ১৫০০ টাকার মত লাগতে পারে।
তবে যদি ওভার চার্জ না দেওয়া হয় তাহলে ব্যাটারী অনেকদিন যাবে। সবাইকে বলে রাখি কেউ ভুলেই রাতবেলা মোবাইল চার্জ দিয়ে ঘুমাবেন না।এমন করে আমার আগের ই৬৩ এর ব্যাটারীটা ডেমেজ হয়ে যায়।

কাল সন্ধায় চার্জ করেছিলাম।এখন বাজে ১২.২৪ দুপুর।২০ ঘন্টা ৯ মিনিট ২৮ সেকেন্ড চার্জ ব্যাবহার হয়েছে। এখনো ৫৭ % আছে।তার মাজে আরও ২০ ঘন্টার মত চলবে।
আপনি যদি টানা গেমস খেলেন।তাহলে ১২-১৪ ঘন্টা চলবে।(পরীক্ষিত)
অ্যান্ড্রোয়েড এর তুলনায় চার্জ খুব একটা মন্দ দেয় না।

সেটের সাথে যা যা ছিল

১.সেট
২.চার্জর এবং ডাটা ক্যাবল
৩.স্মার্ট ট্যাগ(২টি)
৪.হেডফোন
৫.ম্যানুয়াল বুক
এখানে সব কিছু সম্পকে জানলেও স্মার্ট ট্যাগ ব্যাপারটা সম্পকে আগে ধারনা ছিল না।

স্মার্টট্যাগ সম্পকে জানতে এই ভিডিওটি দেখতে পারেন

সবশেষ তথ্য মত সেটটি ভালই চলছে।আর অ্যান্ড্রোয়েড নিয়ে চলতে গবেষনা।সময়টা বেশিরভাগে সময়ই আমার অন্ড্রোয়েড এর সাথে কেটে যাচ্ছে ভালই।

5 thoughts on “অ্যান্ড্রয়েড জগতে প্রবেশ ও আমার সেটটির রিভিউ

আপনার মতামত ...