ফটোগ্রাফি করে আয় করুন

বর্তমানে অনলাইনে পড়ালেখার পাশাপাশি আয় করার সুযোগ বাড়ছে। হাতে হাতে স্মার্টফোন, ডি.এস.এল.আর ক্যামেরার পাশাপাশি স্মার্টফোন কিনতে গেলেই ক্যামেরা কেমন তা জানা চাই আগে।  ফেসবুক ইনস্টাগ্রামে শখের ছবিয়ালদের দেখা মেলে খুব। কেমন হয় যদি শখের বসে তোলা ছবি গুলো থেকে আসে বাড়তি অনলাইন আয়?  আজকের এই ফিচারে ফটোগাফি করে অনলাইনে কিভাবে ছবি বিক্রি করে আয় সম্ভব সে বিষয়ে আলোচনা করা হবে।

ছবি সেল করার সাইট


ছবি সেল করার জন্য বিভিন্ন সাইট আছে। এই সাইটগুলোতে আপনি আপনার আইডি খুলে নিজের সবচেয়ে ভালো তোলা ছবি সেল করতে পারবেন। বিভিন্ন বড় বড় ফটোগ্রাফার এবং প্রতিষ্ঠান এই ছবি গুলো কিনে নেয় এবং খুব ভালো দামও দেয়। বিভিন্ন সাইটের মধ্যে iStock Photo , Art Storefronts, SmugMug Alamy , PhotoShelter, Zenfolio এই সাইটগুলোতে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মানুষ ছবি সেল করে উপার্জন করছে।

 

কি ধরনের সুবিধা পাওয়া যায়


বছরের প্রায় সময় এই সাইটগুলো বিভিন্ন সুবিধা দিয়ে থাকে। বিভিন্ন সময় অনেক ধরনের অফার চলে যাতে ছবির উপর বিভিন্ন কন্টেস্টের অফার চালু করা হয়। এই ফটো কন্টেস্টের মাধ্যমে ১ম, ২য় নির্বাচনের মাধ্যমে উপহার প্রদানের অফার চলে। এছাড়া বাংলাদেশের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান বছরের প্রায় সময় বিভিন্ন প্রতিযোগীতার আয়োজন করে থাকে। এসব প্রতিযোগীতায় অংশগ্রহন করে উপহার জিতে নিতে পারেন।

এছাড়া আপনার তোলা ছবি বিভিন্ন ওয়েবসাইটে হোস্টিং করে (আপ্লোড করে ) বেশ টাকা আয় করতে পারেন । এমন বেশ কিছু সাইট আছে যার মাঝে  সাটার স্টক বেশ ভাল ও পরীক্ষিত । এছাড়া ছবি তুলে আয় করার আরো একটা সাইট হল ইমেজ পর্টার । আপনার একটি ছবির প্রতি ১০০০ ভিসিটের জন্যে ২.৬০ ডলার পর্যন্ত পে করে থাকে। আবার আপনি কাউকে রেফার করলে তার আয়ের ১০% আপনার একাউন্টে জমা হবে।

 

 

আপনার কি করণীয়


আপনি ডি.এস.এল.আর ক্যামেরা বা স্মার্টফোনের ক্যামেরার মাধ্যমে ছবি তুলতে পারেন, যদি আপনার তোলা ছবি বিক্রি না করতে চান। তাহলে আপনি নিজের একটি ব্লগ তৈরি করে সেই ছবিগুলো আপলোড করে ভিজিটরের মাধ্যমে আয় করতে পারেন।একটি ফ্রি ব্লগ ওপেন করে নিন এবং আপনার তোলা সকল ছবি পোষ্ট করুন।তবে মাথায় রাখবেন ছবির পরিমান যেন বেশি হয়।তাহলে ভিজিটর বেশি হবে।কিন্তু যদি ছবির পরিমান কম হয় তাহলে আয় করার চান্স খুব কম।এছাড়া ফ্রিল্যান্সার ফটোগ্রাফার হিসেবে নিজের তোলা ছবি বিক্রি করুন।এটার চাহিদা খুব বেশি।আমাদের দেশে আমরা বিভিন্ন ছবি কপিরাইট আইন না মেনে ব্যভার করি।কিন্তু বাইরের দেশ গুলোতে কপিরাইট আইন যথেষ্ঠ কঠোর যার ফলে তাদের প্রতিষ্ঠান বা অ্যাড,ব্যানারের জন্য প্রতিদিন অনেক ছবির প্রয়োজন হয়।তাই তারা বিভিন্ন ফ্রিল্যান্সার ফটোগ্রাফারের কাছ থেকে এই ছবিগুলো কিনে নেয়।

 

 

কি রকম ছবি

আপনার তোলা ছবি যেন বিজ্ঞাপন,পোস্টার বা কোন ওয়েবসাইটে ব্যবহার করা যায় সেরকম ছবি হতে হবে।সেই সাথে প্রতিটি ফটোস্টক (Photostock) মার্কেটপ্লেস (MarketPlace) এ রয়েছে তাদের নিজস্ব কিছু নিয়ম। তাই শুরুতেই নিয়মগুলো পড়ে নেয়া সবচেয়ে ভালো।আপনার তোলা ছবিতে যদি কোন মডেল থাকে সেক্ষেত্রে কিছু নিয়ম মানতে হবে।আর সাইটগুলোর নির্দিষ্ট শর্ত সহ ফরম থাকে যা পূরন করে ছবি আপলোড করতে হয়ে।এছাড়া কাজ শুরুর আগে সাইটের বিভিন্ন ছবি ঘুরে দেখবেন এতে বুঝতে পারবেন কি ধরনের ছবি আসলে তাদের দরকার হয়।কিন্তু সবচেয়ে ভালো হয় যদি আপনি বেস্ট সেল হওয়া ছবিগুলো দেখেন তাহলে কি ধরনের ছবির চাহিদা বেশি তা বুঝা যায়।তবে সাদারন মনে হওয়া ছবি বেশি সেল হয়।তাই নিজের তোলা ছবি বেশি সম্ভব আপলোড করবেন এবং বেশি বেশি ছবি তুলবেন।

 

 

পেমেন্ট সিস্টেম কি

সাধারনত আয় করা যত সহজ সেই আয় তোলা ততটাই কঠিন। কারন বিদেশি সকল সাইট পেপালের মত নির্ভরযোগ্য পদ্ধতি ব্যবহার করে যা বাংলাদেশে এখনও প্রচলিত হয় নি। তাহলে উপায় কি!উপায় হল  অন্য অনলাইন মাধ্যমগুলোর তুলনায় আই স্টক ফটো থেকে আয় করা অর্থ হাতে পাওয়া তুলনামূলক সহজ।

বাংলাদেশে  পেপাল নেই, তাই প্রি-পেইড মাস্টারকার্ড অথবা ব্যাংকের মাধ্যমে  যে কোনো একটি বেছে নিতে পারবেন আপনি। এর মধ্যে ব্যাংকের মাধ্যমে টাকা নেওয়ায় ঝামেলা কম হয়। তাই পেমেন্ট অপশনে আপনার নাম-ঠিকানাসহ ব্যাংক অ্যাকাউন্টের তথ্য দিলে প্রতি মাস অন্তর আয়ের টাকা ব্যাংকে জমা হবে। আর ছবি আপলোড থেকে শুরু করে অর্থ তুলে নেওয়া পর্যন্ত প্রতিটি বিষয় আপনাকে ই-মেইলের মাধ্যমে জানিয়ে দেওয়া হবে।

তাহলে আর দেরী কেন? আজই শুরু করুন ছবি তুলে আয় করা।

আপনার মতামত ...