রেডমি নোট ৭ প্রো তফাতঃ চায়না/ইন্ডিয়া

বাজারে সাড়া জাগানো রেডমি নোট ৭ ও নোট ৭ প্রো এর ইন্ডিয়ান ও চাইনীজ ভার্সন নিয়ে চিন্তায় আছেন। কোন ভার্সনটি কিনলে ভালো হবে। চিন্তার সমাধান নিয়ে ফিচার তফাত বিষয়ক লেখাটি।

এই লেখাটি থেকে আমরা জানতে পারবো রেডমি নোট ৭ চায়না, রেমডি নোট ৭ ইন্ডিয়া ও রেডমি নোট ৭ প্রো এর মাঝে পার্থক্য এবং আপনার জন্য কোনটি সেরা হবে। তো চলুন শুরু করা যাক।

ক্যামেরা পার্থক্যঃ

  • রেডমি নোট ৭ চায়নাঃ এতে ৪৮ মেগাপিক্সেলের স্যামসাং সেন্সর ব্যবহার করা হয়েছে, এর অ্যাপার্চার এফ/১.৮ এবং ৫ মেগাপিক্সেলের ডেপথ সেন্সর ক্যামেরা ব্যবহার করা হয়েছে।
  • রেডমি নোট ৭ ইন্ডিয়াঃ এতে ১২ মেগাপিক্সেলের (অ্যাপার্চার এফ/২.২) এবং ২ মেগাপিক্সেলের ডেপথ সেন্সর ক্যামেরা ব্যবহার করা হয়েছে। মূল ক্যামেরাতে কোন ব্র্যান্ডের তা উল্লেখ করা হয়নি।
  • রেডমি নোট ৭ প্রোঃ এতে ৪৮ মেগাপিক্সেলের সনি আইএমএক্স৫৮৬ সেন্সর ব্যবহার করা হয়েছে, এর অ্যাপার্চার এফ/১.৮। এতে ৫ মেগাপিক্সেলের ডেপথ সেন্সর ব্যবহার করা হয়েছে।
আরো পড়ুনঃ রেডমি নোট ৭: ৪৮ মেগাপিক্সেল ক্যামেরায়
চিপসেট, সিপিউ ও জিপিউঃ
  • রেডমি নোট ৭ চায়নাঃ এতে ২.২ গিগাহার্জ অক্টাকোর স্ন্যাপড্রাগণ ৬৬০ প্রসেসর ব্যবহার করা হয়েছে। এর জিপি অ্যাড্রিনো ৫১২।
  • রেডমি নোট ৭ ইন্ডিয়াঃ এতে ২.২ গিগাহার্জ অক্টাকোর স্ন্যাপড্রাগণ ৬৬০ প্রসেসর ব্যবহার করা হয়েছে। এর জিপি অ্যাড্রিনো ৫১২।
  • রেডমি নোট ৭ প্রোঃ এতে ২.২ গিগাহার্জ অক্টাকোর স্ন্যাপড্রাগণ ৬৭৫ প্রসেসর ব্যবহার করা হয়েছে। এর জিপি অ্যাড্রিনো ৬১২।
র‍্যাম ও স্টোরেজঃ
  • রেডমি নোট ৭ চায়নাঃ ৩জিবি + ৩২জিবি, ৪জিবি + ৬৪জিবি এবং ৬জিবি + ১২৮জিবি।
  • রেডমি নোট ৭ ইন্ডিয়াঃ ৩জিবি + ৩২জিবি এবং ৪জিবি + ৬৪জিবি।
  • রেডমি নোট ৭ প্রোঃ ৪জিবি + ৬৪জিবি, ৬জিবি + ১২৮জিবি।
আরো পড়ুনঃ বাজার কাঁপাতে রেডমি নোট ৭ প্রো
একই ফিচারঃ

উপরে রেডমি নোট ৭ চায়না, ইন্ডিয়া ও নোট ৭ প্রো এর মাঝে পার্থক্য দেখেছেন। এইবার দেখে নিন ফোনগুলোতে থাকা একই স্পেসিফিকেশনঃ

  • ডিসপ্লেঃ ৬.৩ ইঞ্চি ফুল এইচডি প্লাস এলসিডি ডিসপ্লে, এর রেজুলেশন ২৩৪০*১০৮০ পিক্সেল এবং রেশিও ১৯.৫ঃ৯। স্ক্রিন থেকে বডির রেশিও ৮১.৪%। ডিসপ্লে সুরক্ষার জন্য রয়েছে গরিলা গ্লাস ৫।
  • সেলফি ক্যামেরাঃ সেলফি তোলার জন্য ১৩ মেগাপিক্সেলের ক্যামেরা, এর অ্যাপার্চার এফ/২.২।
  • ব্যাটারিঃ ৪ হাজার মিলিঅ্যাম্পিয়ারের ব্যাটারি। ১৮ ওয়াটের ফাস্ট চার্জিং। কোয়ালকমের কুইক চার্জ ৪ রয়েছে।
  • ইউএসবিঃ ২.০ টাইপ-সি।
  • ওএসঃ অ্যান্ড্রয়েড ৯ পাই এবং মিইউআই ১০।
  • হেডফোন জ্যাকঃ রয়েছে।
  • রেডিওঃ রয়েছে।
  • ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সরঃ ফোনের পেছনে ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর ব্যবহার করা হয়েছে।

এছাড়া আরো কিছু পার্থক্য রয়েছে। যেমনঃ রেডমি নোট ৭ চায়না এবং নোট ৭ প্রো দুটি ফোন দিয়েই এনকোডারঃ এইচ.২৬৪ এমপি৪ এবং এইচ.২৬৫ হাই পারফরম্যান্স রেকডিং করা যায়।

চায়না এবং প্রো তে গেইম স্পিড বুস্টার ফিচার রয়েছে। এর ফলে ব্যবহারকারীরা গেইমিং এক্সপেরিয়েন্স আরো ভালো হবে।

এখন আসা যাক মূল কথায়, আপনি কোনটি নিবেন? আমার মতে রেডমি নোট ৭ প্রো নিলেই সব থেকে বেশি ভালো হবে। আর যদি বাজেট কম থাকে তাহলে রেডমি নোট ৭ চায়না (গ্লোবাল) ভার্সনটি নিতে পারেন।

তো এখন পছন্দ আপনার, আপনি কোনটি নিবেন তা মন্তব্য করে জানাতে পারেন।

ইরফান

জানতে এবং জানাতে ভালোবাসি। তবে প্রযুক্তি নিয়ে জানার আগ্রহটা আরো বেশি তাই নিজে যা জানি তা তুলে ধরি টেকমাস্টার ব্লগ এবং টেকি নাউ। প্রয়োজনে যোগাযোগঃ ফেসবুক টুইটার বিশেষ প্রয়োজেনে ইমেইল hi.mdirfan07@outlook.com

2 thoughts on “রেডমি নোট ৭ প্রো তফাতঃ চায়না/ইন্ডিয়া

  • April 13, 2019 at 11:10 am
    Permalink

    রেডমি নোট 7 প্রো চায়না ভালো হবে নাকি ইন্ডিয়ান টা ভালো হবে প্লিজ একটু জানাবেন 6/128

    Reply
  • April 12, 2019 at 7:13 pm
    Permalink

    25K er moddhe overall valo koyekta phone suggest korben pls>>

    Reply

আপনার মতামত ...