ফেসবুকে লাইক/রিয়্যাক্ট সংখ্যা থাকছে না!

ফেসবুক লাইক, বিগত এক যুগ ধরে ছিলো এর প্রধান প্রচলন। এই লাইকের মাধ্যমেই অনুমান করি ছবিটি কতটা সুন্দর হলো বা শেয়ারকৃত কৌতুক হাসির হলো কিনা। ফেসবুকের লাইক আইকন এতটাই জনপ্রিয় ছিলো যে ফেসবুক প্রতিষ্ঠান এর বাইরে আইকনটির একটি ভাস্কর্য রয়েছে।

 

বর্তমানে ফেসবুক ফিচারটি নিয়ে পুনঃবিবেচনা করছে যেন ফেসবুক আরও নিশ্চিন্তে ব্যাবহার করা যায়। গত সপ্তাহে ফেসবুক জানিয়েছে তারা অস্ট্রলিয়ায় একটি পরীক্ষা করবে লাইক/রিয়্যাক্ট এর সংখ্যা এবং ভিডিও ভিউ এর সংখ্যা লুকিয়ে রেখে। পোস্টকারী শুধুমাত্র সংখ্যা গুলো দেখতে পাবেন, বাকিরা দেখতে পাবেন না। পরিক্ষাটি করা হয়েছিলো সকল ব্যাবহারকারী, পেজে এবং বিজ্ঞাপনেও!

 

আমরা একটি সীমিত পরীক্ষা চালাচ্ছি যেখানে লাইক, রিয়েকশন, ভিডিও ভিউ এর সংখ্যা শুধু পোস্টকারীই দেখতে পারবেন। আমরা এর প্রতিক্রিয়া সংগ্রহ করে বুঝতে চেষ্টা করবো যে এই পরিবর্তনটি ফেসবুক ব্যাবহারকারীদের অভিজ্ঞতা আরও ভালো করবে কিনা। আমরা টেস্টটি করছি এই কথা বিবেচনা করে যে, আমরা চাই আপনার বন্ধুরা যেন আপনার পোস্ট এর উপরই কেন্দ্র করে যাচাই করে, আপনার পাওয়া লাইক সংখ্যা দেখে নয়।

–  ফেসবুক

 

পরীক্ষাটির মাধ্যমে বুঝা যাবে, লাইক সংখ্যার সম্মুখীন না হয়ে ব্যাবহারকারীরা তাদের পোস্ট করতে আরও আরামপ্রদ বোধ করবেন কিনা। ইতিমধ্যে এই পরীক্ষাটি নিয়ে অধিকাংশেরই রয়েছে ভালো মতামত।

যদিও, যারা ইনফ্লুয়েন্সার রয়েছেন তারা এই পরীক্ষাটি নিয়ে চিন্তিত আছেন। কারণ তাদের কে লাইক সংখ্যার উপর ভিত্তি করে বেতন দেওয়া হয়।

 

লাইক আপনাকে প্রায় একই রকম অনুভব প্রদান করে যেমনটা আপনি ক্যাসিনো তে জিতলে অনুভব করেন

রিনি এংলেন,

সাইকোলোজি প্রফেসর

– নর্থওয়েস্ট ইউনিভার্সিটি।

 

আপনার ব্যাক্তিগত জীবনে ফেসবুক এর এই পরিবর্তনটি কীরূপ প্রভাব ফেলবে বলে আপনি মনে করেন?

এই পরিবর্তনটি নেতিবাচক এবং ইতিবাচক প্রভাব জানতে চাই আপনাদের কাছ থেকে।

ধন্যবাদ।

Sabbir Hasan

প্রযুক্তি নিয়ে অত্যন্ত কৌতূহলী। জানতে এবং জানাতে ভালো লাগে, তাই মাঝে মাঝে টুকিটাকি এই অনভিজ্ঞ হাতের লেখালিখি। পড়ালেখার পাশাপাশি আমি একজন গ্রাফিক ডিজাইনার এবং ফ্রন্ট-এন্ড ওয়েব ডেভেলপার।

Leave a Reply

Your email address will not be published.