প্রোজেক্টর কেনার সময় যে ব্যাপারগুলো নজর বাধ্যতামূলক

প্রযুক্তির উৎকর্ষতার সঙ্গে সঙ্গে নতুন নতুন মোবাইল, কম্পিউটার এক্সেসরিজ এর ব্যবহার বেড়েই চলছে। জীবনকে আরও সহজ করে তুলতে ব্যবহার করুন এসব অত্যাধুনিক এক্সেসরিজ। একই সাথে দিন দিন বাংলাদেশের প্রোজেক্টরের জনপ্রিয়তা বেড়েই চলছে, তাই প্রোজেক্টর কেনার আগে বা পরে যেন কোন সমস্যাতে পরতে না হয় তার জন্য কত গুলো বিষয়ের দিকে নজর দিতে হবে জানবো টেকপ্রেমী তুহিন জুবায়েদ এর সাথে

বর্তমানে বাংলাদেশে প্রজেক্টর দিয়ে শ্রেণিকক্ষ পরিচালনা , সভা-সেমিনার কিংবা প্রশিক্ষণের কাজের জন্য, লাইভ খেলা দেখা, ভিতরের কোন সরাসরি অনুষ্ঠান বাইরে দেখানোর জন্য ব্যাপক ভাবে ব্যবহার করা হচ্ছে।

বাংলাদেশের প্রোজেক্টরের জনপ্রিয়তা বেড়েই চলছে। বাংলাদেশের জনপ্রিয় প্রোজেক্টর ব্র্যান্ডগুলোর মধ্যে এপসন, অপটোমা, হিটাছি, সনি, আসুস, কেসিও, বেনকিউ, এন ই সি সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য। বাজারে এখন সুলভ মূল্যে অনেক প্রোজেক্টর পাওয়া যায়। তাছাড়া চায়না ব্র্যান্ড এর প্রোজেক্টর অনেক কম মূল্যে বাজারে পাওয়া যায়।

প্রোজেক্টর কেনার সময় যে ব্যাপারগুলো নজর বাধ্যতামূলক 2

আমরা অনেকে প্রোজেক্টর কেনার পর জানতে পারি যে, আমার কেনা প্রোজেক্টর দিয়ে এই কাজ হবে না, ওইটা করা যাবে না, তখন আমরা বিপদে পরি, না পারি প্রোজেক্টর পাল্টাতে, না পারি নতুন একটা কিনতে। তাই প্রোজেক্টর কেনার আগে নিচের বিষয়গুলো আগে থেকে জেনে নিন।

১। ব্রাইটনেসঃ


প্রোজেক্টরের ব্রাইটনেস LUMENS কত সেটা জেনে নিন কারণ তার ওপর নির্ভর করে আপনি সেটা কেমন আলোতে চালাতে পারবেন, LUMENS যত বেশি হবে আপনি তত কম আলোতে প্রোজেক্টর চালাতে পারবেন।

২। কন্ট্রাস্ট রেশিও:


সাধারন মনিটরের মতই, রেশিও যত বেশী ছবি তত ঝকঝকে। তাই কন্ট্রাস্ট রেশিও ব্যাপারে খেয়াল রাখা জরুরী।

৩। রেজুলেশনঃ


বর্তমানে বাজারে বিভিন্ন রেজুলেশনের প্রোজেক্টর পাওয়া যায়, সেগুলো হল, SVGA (800 x ৬০০), XGA (1024 x 768), WXGA (1280 x 800), HD (1920 x 1080) এবং 4K (4096 x 2160)। তবে এর মধ্যে সবচেয়ে জনপ্রিয় হল HD রেজুলেশন। প্রোজেক্টর কেনার আগে অবশ্যই জেনে নিন আপনি যে প্রোজেক্টর কিনছেন সেটার রেজুলেশন কি!

৪। ল্যাম্প লাইফঃ


ল্যাম্প লাইফ হল প্রোজেক্টর মোট কত ঘণ্টা চলবে সেটার মেয়াদকাল।তাই যত বেশি ল্যাম্প লাইফ থাকবে আপনার জন্য তত বেশি সুবিধা জনক হবে। প্রোজেক্টর কেনার আগে অবশ্যই জেনে নিন আপনি যে প্রোজেক্টর কিনছেন সেটার ল্যাম্প লাইফ কত ঘণ্টা।

৫। ওয়ারেন্টিঃ


প্রোজেক্টরের ওয়ারেন্টি এবং ল্যাম্প লাইফ ওয়ারেন্টি আলাদা আলাদা হয় তাই কেনার আগে জিজ্ঞাসা করে নিন প্রোজেক্টরের ওয়ারেন্টি এবং ল্যাম্প লাইফ ওয়ারেন্টি কত দিন এবং ব্যাটারিতে বিক্রয়োত্তর সেবা পাওয়া যাবে কি না সেটাও ভাল করে জেনে নিন।

প্রোজেক্টর কেনার সময় যে ব্যাপারগুলো নজর বাধ্যতামূলক 3

তাছাড়া HDMI ক্যাবল সাপোর্ট করে কিনা, ওয়াইফাই কানেকশন দেয়া যাবে কিনা সে বিষয়গুলো জেনে নেয়া ভাল। আপনি কি কাজে প্রোজেক্টর ব্যবহার করবেন এবং তার সাথে আপনার বাজেট কত তা নিধা্রন করতে হবে। মূলত আপনার চাহিদা অনুযায়ী প্রোজেক্টর গুনাবলীগুলো লক্ষ্য রাখতে হবে।

এই আর্টিকেল টি যদি ইউসফুল মনে করেন তবে নিচের কমেন্ট বক্স-এ আপনার মতামত দিতে পারেন। ধন্যবাদ।

বিষয় গুলো আরও জানতে ভিজিট করতে পারেনঃ projector.com.bd

One thought on “প্রোজেক্টর কেনার সময় যে ব্যাপারগুলো নজর বাধ্যতামূলক

  • জুলাই 14, 2018 at 10:10 পূর্বাহ্ন
    Permalink

    খুব ভালো

    Reply

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।