রাউটারের ২.৪ ও ৫ গিগাহার্জ ব্যান্ড এর পার্থক্য

আমাদের দৈনন্দিন জীবনে ইন্টারনেট ব্যাবহারের ক্ষেত্রে রাউটার একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। রাউটার এর মাধ্যমে একটি সংযোগ থেকে অনেকগুলো ওয়াইফাই সাপোর্টেড ডিভাইসে ইন্টারনেট ব্যাবহার করা যায়।

বাজারে রাউটার কেনার সময় সাধারনত ২.৪ গিগাহার্জ ও ৫ গিগাহার্জ দুই ব্যান্ড এর রাউটার দেখা যায়। আবার দুইটি ব্যান্ড একত্রে ব্যাবহার করা হয়েছে এমন রাউটারও পাওয়া যায়।

আমরা অনেকেই জানি না এই দুইটি ব্যান্ড দ্বারা কি বোঝায়। দুইটি ব্যান্ড এর মধ্যে পার্থক্য কি ? কোন ব্যান্ড এর রাউটারটি কেনা উচিত হবে ? চলুন রাউটার এর এই ব্যান্ড সম্পর্কে জেনে নেওয়া যাক।

২.৪ গিগাহার্জ ও ৫ গিগাহার্জ ব্যান্ড দুটির পার্থক্যঃ

২.৪ গিগাহার্জ ও ৫ গিগাহার্জ ব্যান্ড দুটির মধ্যে বেশ কিছু পার্থক্য রয়েছে। তবে এদের মধ্যে প্রধান পার্থক্য হল এদের কভারেজ এবং গতির মধ্যে।

২.৪ গিগাহার্জ ব্যান্ড বড় এলাকা জুড়ে কাজ করতে পারে। দুই/তিন রুম বিশিষ্ট বাসার প্রত্যেক রুমেই এই ব্যান্ড থেকে সিগ্নাল পাওয়া যাবে। রুমগুলোর মাঝের দেওয়াল এক্ষেত্রে খুব বেশি প্রভাব ফেলতে পারে না। গতির দিক থেকে ২.৪ গিগাহার্জ ব্যান্ড দুর্বল। অর্থাৎ এটি বড় এলাকা জুড়ে সিগনাল দিতে পারলেও ইন্টারনেটের দ্রুত গতি বজায় রাখতে পারে না। ইন্টারনেটের গতি ধীর হয়ে যায়।

দ্রুত গতির ইন্টারনেট পাওয়া যায় ৫ গিগাহার্জ ব্যান্ড এর মাধ্যমে। তবে এটি বড় এলাকা জুড়ে বিস্তৃত হতে পারে না। দুই/তিন রুম বিশিষ্ট বাসার সব রুমে ভালো সিগনাল নাও পাওয়া যাতে পারে।

২.৪ গিগাহার্জ এর সুবিধাঃ

২.৪ গিগাহার্জ সবচেয়ে বহুল ব্যাবহৃত ব্যান্ড। মোবাইল ফোন, ল্যাপটপ, টিভিসহ সাধারনত সকল ধরনের প্রযুক্তি পণ্যে এই ব্যান্ডে কাজ করে। ফলে ২.৪ গিগাহার্জ ব্যান্ড রাউটার ব্যাবহার করে সব ডিভাইস এ ইন্টারনেট চালানো যাবে। এছাড়া কভারেজ বেশি পাওয়া যাওয়ায় বড় এলাকায় এটি ব্যাবহার করা যাবে।

২.৪ গিগাহার্জ এর অসুবিধাঃ

অনেক ডিভাইস এতে সংযুক্ত হতে পারে বিধায় ইন্টারনেটের গতি কমে যায়।

৫ গিগাহার্জ এর সুবিধাঃ

উন্নত প্রযুক্তি সম্পন্ন নতুন কিছু ডিভাইস ৫ গিগাহার্জ সাপোর্টেড। সাধারণত ল্যাপটপ বা ডেস্কটপ এই ব্যান্ড ব্যাবহার করে থাকে। তাই এই ব্যান্ড এর সাথে সব ডিভাইস যুক্ত হতে পারে না। ফলে ৫ গিগাহার্জ ব্যান্ড থেকে দ্রুত গতির ইন্টারনেট পাওয়া সম্ভব হয়।

৫ গিগাহার্জ এর অসুবিধাঃ

৫ গিগাহার্জ ব্যান্ড থেকে দ্রুত গতির ইন্টারনেট পাওয়া সম্ভব হলেও এটির একটি প্রধান সমস্যা হল এটি বড় এলাকায় কভারেজ দিতে পারে না।

কোন ব্যান্ডের রাউটার কিনব ?

কাজের ধরন ও জায়গা বুঝে যে ব্যান্ড এর রাউটারটি কেনা প্রয়োজন হয় সেটিই আপনি কিনবেন। তবে বাজারে যেহেতু ডুয়াল ব্যান্ড এর রাউটার কিনতে পাওয়া যায় সেহেতু এই রাউটারটি কেনাই শ্রেয়।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।