ওয়াইফাই ৬ এর সুবিধাসমূহ

প্রযুক্তি গবেষণায় বিশ্ব এগিয়ে চলছে দ্রুত গতিতে। বর্তমান প্রযুক্তিকে কিভাবে আরও উন্নত করা যায় তা নিয়ে চলছে বড় বড় প্রতিষ্ঠানগুলোর প্রতিযোগীতা। প্রত্যেক দিনই আসছে নতুন নতুন প্রযুক্তি।

একসময় মানুষ ইন্টারনেট এর কথা চিন্তা না করলেও এখন ওয়্যারলেস প্রযুক্তিতে ব্যাবহৃত হচ্ছে এটি। ওয়্যারলেস ইন্টারনেট ব্যাবহার এর জন্য বা অন্য কোন কাজ করার জন্য যে প্রযুক্তিটি ব্যাবহার হয় তা হচ্ছে ওয়্যারলেস ফিডেলিটি বা ওয়াইফাই।

পৃথিবীতে ওয়াইফাই এর এখন ৬ষ্ঠ সংস্করণ অর্থ্যাৎ ওয়াইফাই ৬ চলছে। আজকের লেখায় আপনাদের ওয়াইফাই ৬ সম্পর্কে কিছু তথ্য দেওয়ার চেষ্টা করব।

ওয়াইফাই ৬ কি?

ওয়্যারলেস প্রযুক্তির সর্বশেষ সংস্করণ হল ওয়াইফাই ৬। বিশ্বব্যাপী ক্রমবর্ধমান ডেটা সংযোগ এবং ব্যান্ডউইথ এর চাহিদার প্রেক্ষিতে এই সংস্করণটি তৈরি করা হয়েছে।

ওয়াইফাই ৬ এর প্রযুক্তিগত নাম হচ্ছে ৮০২.১১ এএক্স। এটি প্রায় ৯.৬ জিবিপিএস এ কাজ করতে পারে।

ওয়াইফাই ৬ এর সুবিধাঃ

স্মার্টফোন, টিভি, নেটওয়ার্ক ক্যাবল, নেটওয়ার্ক স্পিড, ব্যান্ডউইথ এর সাথে ওয়াইফাই এর নিবিড় সম্পর্ক রয়েছে। ওয়াইফাই ৬ এ এই সবগুলো ওয়াইফাই এর অন্যান্য সংস্করণ থেকে ভাল কাজ করতে পারে।

সাধারণত অফিস, ব্যবসায়প্রতিষ্ঠান বা ঘরে একটি ওয়াইফাই রাউটার ব্যাবহার করে একাধিক ডিভাইসে ইন্টারনেট চালানো হয়। এমন অবস্থায় ডাটা ট্রান্সফার এর গতি অনেক কমে যায়। ওয়াইফাই ৬ এ সমস্যার সমাধান করা হয়েছে।

ওয়াইফাই ৬ এর মাল্টি ইউজার-মাল্টিপল ইনপুট মাল্টিপল আউটপুট প্রযুক্তি একই সাথে ৮ টি আপলিংক / ডাউনলিংক প্রান্ত সচল থাকে। তাই একাধিক ডিভাইস এর সাথে যুক্ত হলেও সংযোগ ড্রপ করার সম্ভাবনা একেবারেই কম।

এছারা ওয়াইফাই ৬ এ রয়েছে স্বয়ংক্রিয় স্লিপ ও ওয়েক আপ মোড। ডাটা ট্রান্সফার সম্পন্ন হয়ে গেলে এটি স্লিপ মোডে চলে যায়। এতে করে ব্যাটারী বা ওয়াইফাই ডিভাইসের উপর চাপ কমে।

ওয়াইফাই ৬ এর সুবিধা পাওয়ার জন্য ওয়াইফাই ৬ ডিভাইস ও রাউটার দুটিরই প্রয়োজন হবে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।