২০২০-২১ অর্থবছরের বাজেটে মোবাইল ও বিজ্ঞাপনে ব্যয় বাড়ছে

মোবাইল ফোনে সিম কার্ড ও রিমকার্ড ব্যবহার করে সেবা পাওয়ার ক্ষেত্রে ৫শতাংশ সম্পূরক শুল্ক আরোপ হচ্ছে। গতকাল বিকেল ৩ টায় ড. শিরীন শারমিন এর সভাপতিত্বে সংসদে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল এই বাজেট প্রস্তাব করেন।

এর আগে মোবাইল ফোনের মোট শুল্কের পরিমান ছিলো ২৭.৭৭% এবার ৫% অতিরিক্ত সম্পূরক শুল্ক আরোপের ফলে ১৫ শতাংশ ভ্যাট ১% সারচার্জ ও ১৫% সম্পূরক শুল্ক ও অন্যান্য ব্যয় মিলে গ্রাহককে মোট ৩৩.২৫শতাংশ শুল্ক দিতে হবে। বৃহস্পতিবার মধ্যরাত থেকেই এই শুল্ক আরোপ হবে বলে জানিয়েছে অপারেটরগুলো।

অর্থাৎ আগে যেখানে প্রায় ১০০ টাকার সেবা পাওয়ার জন্যে গ্রাহককে খরচ করতে হতো ১২৭টাকা ৭৭পয়সা। সেই একই পরিমাণ সেবা পেতে এখন গ্রাহককে খরচ করতে হবে ১৩৩টাকা ২৫পয়সা। এর মধ্যে গ্রাহক ১০০ টাকা সমপরিমানের সেবা পাবেন এবং বাকি ৩৩টাকা ২৫পয়সা সরকার পাবে।

বর্তমানে বিটিআরসি এর মার্চ ২০২০ এর সমীক্ষা অনুযায়ী বাংলাদেশে মোবাইল ফোন গ্রাহকের পরিমান প্রায় ১৬ কোটি ৫৩ লাখ। আর ইন্টারনেট সেবা গ্রহণকারী গ্রাহকের পরিমাণ ১০ কোটি ৩২ লাখ। এর মধ্যে দেশের সবচেয়ে বড় অপারেটর গ্রামীণফোনের গ্রাহক প্রায় ৪৬শতাংশ ,দ্বিতীয় অপারেটর রবির গ্রাহকের পরিমাণ মোট গ্রাহকের ৩০শতাংশ আর বাংলালিংক অপারেটরে গ্রাহকের পরিমাণ ২২ শতাংশ।

মোবাইলে ব্যয়ের এই বৃদ্ধিতে মোবাইল অপারেটরগুলো দুঃখ প্রকাশ করেছে। তাদের দাবি করোনার সময় ডিজিটাইলেশনে মোবাইলের ব্যবহার প্রচুর বৃদ্ধি পেয়েছে। এসময় যোগাযোগে মোবাইল ব্যবহারে মানুষ বেশি ঝুকছে। এই ৫% অতিরিক্ত শুল্ক প্রস্তাব মানুষকে মোবাইল ব্যবহারে অনুৎসাহিত করবে।

 

এছাড়া ব্যয় বাড়ছে ফেসবুক টুইটারের মতোন সামাজিক মাধ্যমের বিজ্ঞাপনগুলোতেও। গতবছর সামাজিক মাধ্যমে বিজ্ঞাপণে ১৫ শতাংশ ভ্যাট আরোপ করা হয়। এবার ২০২০-২১ অর্থবছরের বাজেটে বিজ্ঞাপনের উপর ১০ শতাংশ হারে উৎস কর ও আরোপ করা হয়।

উদয়

সবার মধ্যেই কিছু না কিছু থাকে,সেই কিছু খোজার প্রচেষ্টাতেই আছি। ভালো লাগে টেকনোলজি,তাই টেক-মাস্টারব্লগের সাথে সম্পৃক্ততা ।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।