ফিরে এলো ম্যালওয়্যার

আপনি পিসি চালু করে যদি হঠাৎ দেখেন আপনার উইন্ডোজটি কাজ করছে না; বরং একটি সতর্ক বার্তা ভেসে উঠলো যে,”আপনার উইন্ডোজটি ব্যান করা হয়েছে”(ইউর উইন্ডোজ হেজ বিন ব্যান্ড)-তাহলে তা অবশ্যই চিন্তার বিষয় হয়ে দাঁড়ায়। এই সমস্যাটি দেখা দেয় মূলত ম্যালওয়্যারের কারণে। এ সমস্যাটি সর্বপ্রথম ২০১৬ সালে দেখা যায়। ম্যালওয়ার (ম্যালিশাস সফটওয়্যার) হল এক বিশেষ ধরণের সফটওয়্যার যার মধ্যে আছে বিভিন্ন  কম্পিউটার ভাইরাস, ওয়ারমস, স্পাইওয়ার, এডওয়ার প্রভৃতি। এই ভাইরাসটি আপনার কম্পিউটারের স্ক্রিন লক করে দেয় এবং উক্ত সতর্ক বার্তাটি স্ক্রিনে প্রদর্শন করে।

তবে ভয় পাবার কিছু নেই। কারণ আপনার উইন্ডোজ প্রকৃতপক্ষে লক হয়নি। কারণ, উইন্ডোজ লক হলে মাইক্রোসফট এ ব্যাপারে কোন সতর্ক বার্তা প্রদর্শন করেনা। মূলত পিসি যখন ম্যালওয়্যার দ্বারা আক্রান্ত হয় তখন এটি উইন্ডোজকে রক্ষা করার জন্য অটোলক হয়ে যায়।

উইন্ডোজ আনলক করার জন্য আগে আপনাকে মাইক্রোসফট এর কোন ইঞ্জিনিয়ারের কাছে যেতে হত। সেখান থেকে স্ক্রিন আনলক করার জন্য কোড এবং নতুন মাইক্রোসফট লাইসেন্স ক্রয় করতে হত।

তবে “আইডি র‍্যানসামওয়্যার” এর নির্মাতা মাইকেল গিলেস্পি উইন্ডোজ আনলক করার জন্য নতুন ২টি কোড উদ্ভাবন করেন। “6666666666666666” বা “XP8BF-F8HPF-PY6BX-K24PJ-RAA00” যেকোনো একটি কোড লিখে এন্টার চাপলে উইন্ডোজ আনলক হয়ে যায়। এতে কোন বাড়তি খরচও হয়না।

তবে বর্তমানে যে ম্যালওয়্যারটি উইন্ডোজে আক্রমণ করছে তাতে কিছু বাড়তি ঝামেলাও দেখা দিয়েছে। এই ম্যালওয়্যারটি আরও বেশি শক্তিশালী লক স্ক্রিন নিয়ে এসেছে। যা ব্যবহারকারীকে নিচের যেকোনো একটি সিদ্ধান্ত বেছে নিতে বলে-

(ক) $৫০ বিটকয়েন আকারে প্রদান করতে হবে উইন্ডোজ আনলক কী পাওয়ার জন্য।

নতুবা,

(খ) পিসির সব ডাটা মুছে গিয়ে পিসি ব্যবহারের অযোগ্য হয়ে পড়বে।

তবে ভয় পাওয়ার কিছু নেই। কারন পূর্বের মতো এই ম্যালওয়্যারকেও পূর্বোল্লিখিত উপায়ে ধ্বংস করা যায়।

ম্যালওয়্যার থেকে বাঁচার উপায় হল অনলাইনে কোন অজানা বা সন্দেহজনক ফাইল বা লিংকে ক্লিক না করা বা তা ওপেন না করা। তাছাড়া ভালমানের অ্যান্টি ম্যালওয়্যার অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহারের মাধ্যমেও ম্যালওয়্যার ভাইরাস থেকে বাঁচা যায়।

আপনার মতামত ...