কর্ম গতিশীলতায় ‘টুডুইস্ট’

আপনি কি এমন একটি টু-ডু লিস্ট এপ খুঁজছেন যা সব ধরণের ডিভাইসে কাজ করতে পারে? যা আপনার সামগ্রিক কার্যাবলিকে সুচারূরুপে পর্যবেক্ষণ করতে পারে? সেই সাথে কর্মক্ষেত্রে ক্রিয়াশীল হতে সাহায্য করে? সেক্ষেত্রে ‘টুডুইস্ট’ হল সবচেয়ে নির্ভরযোগ্য এপ। সব ধরণের ডিভাইসে এটি ব্যবহার করা অত্যন্ত সহজ। আর এর ফিচার অন্যান্য টুডুলিস্ট এপ যেমন- আসানা, রিমেম্বার দ্য মিল্ক, মাইক্রোসফট টু-ডু, অ্যানি.ডু, এক্টিভ ইনবক্স এর তুলনায় ভিন্ন।

ফিচারঃ

১. ‘টুডুইস্ট’ এর সবচেয়ে আকর্ষণীয় ফিচার হল ‘কারমা’। ‘কারমা’ হল একটি ছোট রিপোর্ট যার মাধ্যমে আপনার কাজের অগ্রগতি বর্ণনা করা হয়। আপনি সাপ্তাহিক কাজগুলো ঠিক মতো করলেন কিনা? অগ্রাধিকার ভিত্তিতে যে কাজটি আগে করার কথা তা আগে করেছেন কিনা? প্রয়োজনীয় কাজটি ফেলে রেখে অপ্রয়োজনীয় কাজটির পেছনে সময় ও শক্তি ব্যয় করেছেন কিনা? ইত্যাদি বিষয়ে রিপোর্ট করবে আপনাকে। যা অন্য কোন টু-ডু লিস্ট এপ এর ক্ষেত্রে দেখা যায়না।

২. টাস্ক-ম্যানেজমেন্ট টুল হিসেবে ‘টুডুইস্ট’ অন্যতম সেরা এপ। এর সবচেয়ে আকর্ষণীয় দিক হল এটি আইওএস এবং অ্যানড্রয়েড থেকে শুরু করে ‘জিমেইল’ এবং ‘থান্ডারবার্ড’ পর্যন্ত সব ধরণের ডিভাইস ও সফটওয়্যারে কাজ করে। ‘উইন্ডোজ-১০’ এবং ‘উইন্ডোজ-১০ মোবাইল’ এর এপ হিসেবেই পাওয়া যায়।

৩. এটি একটি ক্লাউড ভিত্তিক সার্ভিস। তাই এটি বিভিন্ন টাস্ক এবং নোটস এর মধ্যে সমন্বয় সাধন করতে পারে। এটি ডাটা ব্যাকআপ করতেও সক্ষম।

৪. ‘টুডুইস্ট’ অফলাইনে কাজ করতে পারে। পরবর্তীতে যেকোনো সময় অনলাইনে গেলে এটি সকল ডাটা সমন্বয় করে।

৫. ‘টুডুইস্ট’ এর মাধ্যমে বিভিন্ন প্রজেক্ট তৈরি করা যায়। এইসব প্রজেক্টে প্রয়োজনীয় টাস্ক যোগ করা যায়। টাস্কগুলোকে আবার সাব-টাস্কে বিভক্ত করা যায়। সেই সাথে নির্ধারিত তারিখ, রিমাইন্ডার, ফ্ল্যাগ প্রভৃতি যোগ করা যায়।

৬. ‘টুডুইস্ট’ সাধারণ কিছু নিয়মাবলি পালন করে। যেমন- আপনি যদি প্রতি ২ সপ্তাহ পর পর কিংবা প্রতি শুক্রবারে টাস্কগুলো পুনঃমার্জন করতে চান তাহলে টাস্ক টাইটেলে এ বিষয়টি উল্লেখ করতে হবে। আবার কোন প্রজেক্টে টাস্ক কিংবা কোন ট্যাগ যোগ করতে চাইলে # কিংবা @ ব্যবহার করতে হবে।

৭. ডেস্কটপ কিংবা ওয়েব ভার্সনে সময় উল্লেখ করতে হলে তা স্পষ্টভাবে উল্লেখ করতে হবে। যেমন- আপনি ২ সপ্তাহ পর পুনঃমার্জন করতে চান নাকি প্রতি শুক্রবারে নাকি অন্য যেকোনো দিন? নতুবা আপনি সময় মতো রিমাইন্ডার পাবেন না। তবে মোবাইল এপ এ এ ধরণের ঝামেলা হয়না। সেখানে আপনি চাইলে তারিখের সাথে সময়ও উল্লেখ করে দিতে পারেন।

৮. আপনার সহায়তাকারী কোন কলিগ কিংবা বন্ধু আপনার কোন টাস্ক বা প্রজেক্ট সম্পাদন করতে চাইলে তাকেও ‘টুডুইস্ট’ এপ ব্যবহার করতে হবে। তবে সেক্ষেত্রে তাকে প্রিমিয়াম ভার্সন ব্যবহার করতে হবে এমন কোন কথা নেই। এভাবে আপনি অন্যান্যদের সহযোগীতায় আপনার টাস্কটি সম্পাদন করতে পারবেন।

৯. এর মাধ্যমে টাস্ক ফিল্টার করা অনেক সহজ। নিয়োগকর্তা, নির্ধারিত তারিখ ও অগ্রাধিকার ভিত্তিতে ফিল্টার করা যায়। আপনি চাইলে নিজের ইচ্ছা মতোও ফিল্টার তৈরি করতে পারেন।

১০. ‘টুডুইস্ট’ এর রিমাইন্ডার অপশনও অনেক ভাল। মোবাইল ভার্সনে ইমেইল নোটিফিকেশন, বার্তা নোটিফিকেশন,অবস্থান ভিত্তিক নোটিফিকেশন ইত্যাদি পাওয়া যায়।

মূল্যঃ

এই এপটি সম্পূর্ণ ফ্রি। এর ফ্রি ভার্সন দিয়ে প্রায় সব ধরণের কাজই করা যায়। তবে প্রিমিয়াম প্রদান করে অনেক বাড়তি ফিচার পাওয়া যায়। যা আপনাকে কাজে আরও বেশি সক্রিয় এবং উৎপাদনশীল করে তুলবে। তবে প্রিমিয়াম ভার্সনের মূল্য অন্যান্য টুডুলিস্ট এপ এর তুলনায় অনেক বেশি। তবে আপনি যদি একটু খরচ করে এই এপটি কিনে ফেলেন তাহলে আপনাকে আফসোস করতে হবেনা এটা নিশ্চিত ভাবে বলা যায়।

ফ্রি ভার্সনে আপনি পাবেন নতুন টাস্ক তৈরির সুযোগ,বিভিন সাব-টাস্ক তৈরির সুযোগ, অবস্থান ভিত্তিক রিমাইন্ডার, নতুন নোট তৈরি ও ফাইল আপলোডের সুযোগ। এর মাধ্যমে সর্বোচ্চ ৮০টি প্রজেক্ট তৈরি করতে পারবেন এবং ৫ জনের সাথে শেয়ার করতে পারবেন।

প্রিমিয়াম ভার্সনটির জন্য প্রতি বছর $২৮.৯৯ ব্যয় করতে হয়। যার বাংলাদেশি মূল্য প্রায় ২৩৯৯ টাকা। প্রিমিয়াম ভার্সনে আপনি পাবেন টু-ডুলিস্টের সর্বাত্তক সুবিধা, অবস্থান ভিত্তিক রিমাইন্ডার, লেবেল ও স্মারক তৈরির সুযোগ,ইমেইলের মাধ্যমে টাস্ক তৈরি সহ আরও অনেক কিছু। এর মাধ্যমে সর্বোচ্চ ২০০টি প্রজেক্ট তৈরি করতে পারবেন এবং ২৫ জনের সাথে শেয়ার করতে পারবেন।

 

সর্বোপরি বলা যায়, টুডু এপ হিসেবে টুডুইস্ট সর্বাধিক ফিচার সম্পন্ন এবং সব ধরণের ডিভাইসে ব্যবহার উপযোগী হওয়ায় টু ডু লিস্ট এপ হিসেবে এর অবস্থান সবার উপরে।

আপনার মতামত ...