‘ওয়ার্ডপ্রেস ব্লগিং’ এর নিয়ম-কানুন

ব্লগিং বর্তমানে বেশ জনপ্রিয় একটি বিষয়। ব্লগিং এর মাধ্যমে আপনি আপনার চিন্তা-চেতনা, ধারণা ও অভিজ্ঞতাকে সকলের সামনে তুলে ধরতে পারেন। তাছাড়া ব্লগিং এর মাধ্যমে অর্থ উপার্জনও করা যায়। আগে ব্লগিং শুরু করার জন্য এইচটিএমএল, সিএসএস, পিএইচপি সম্পর্কে ভাল জ্ঞান থাকা লাগতো। কিন্তু ‘ওয়ার্ডপ্রেস’ বর্তমানে ব্লগিংকে আরও অনেক সহজ করে দিয়েছে। সেটি সবারই কম-বেশি জানা। এবার আসুন তাহলে জেনে নিই কিভাবে শুরু করবেন ‘ওয়ার্ডপ্রেস ব্লগিং’।

‘ওয়ার্ডপ্রেস ব্লগিং’ শুরু করতে হলে যে ৩টি বিষয় জরুরি তা হলঃ

১. একটি ডোমেইন নেইম

২. একটি ওয়েব হোস্টিং একাউন্ট

৩. সেই সাথে আপনার মূল্যবান আধাঘন্টা সময়।

এবার আসুন তাহলে ধাপে ধাপে জেনে নেওয়া যাক, কিভাবে শুরু করবেন আপনার নিজস্ব ওয়ার্ডপ্রেস ব্লগিং।

ধাপঃ১

ডোমেইন নেইম এবং ওয়েব হোস্টিংঃ

অনেকেই ব্লগিং করার জন্য ভুল প্লাটফর্ম বেছে নেন। যা ব্লগিং করার মূল উদ্দেশ্যকেই ব্যাহত করে। ওয়ার্ডপ্রেস এ ব্লগিং করার জন্য ২ ধরণের প্লাটফর্ম আছে- WordPress.org এবং WordPress.com ।

প্রায় ৯৫% ব্লগারই WordPress.org এ ব্লগিং করে। কারণ এর আছে নিজস্ব হোস্টিং ব্যবস্থা। এটি ব্যবহার করতে কোন অর্থ ব্যয় করতে হয়না এবং নিজের ইচ্ছেমতো নিজের ব্লগিং ওয়েবসাইটটি ডিজাইন করা যায়। সেই সাথে এর মাধ্যমে অর্থ উপার্জনও করা যায়।

এখানে আমরা জানবো WordPress.org এ কিভাবে ওয়েবসাইট খোলা যায়

ডোমেইন নেম কিঃ


একটি ব্লগিং ওয়েবসাইট খোলার জন্য সর্বপ্রথম আপনার প্রয়োজন হবে একটি ‘ডোমেইন নেইম’ এর। ‘ডোমেইন নেইম’ হল কোন ব্যক্তি যা লিখলে আপনার ওয়েবসাইটটি খুঁজে পাবে সেই নামটি। অর্থাৎ অন্য কথায়, ইন্টারনেটে আপনার ওয়েবসাইট খুঁজে পাওয়ার ঠিকানাটিই হল ‘ডোমেইন নেইম’। যেমন- গুগলের ডোমেইন নেইম হল google.com কিংবা ফেইসবুকের ডোমেইন নেইম হল facebook.com ।

অন্য যে বিষয়টি আপনার দরকার হবে তা হল ‘ওয়েব হোস্টিং’। ‘ওয়েব হোস্টিং’ মানে হল ইন্টারনেটের যে অংশে আপনার ওয়েবসাইটটি থাকবে সেই অংশটি। প্রতিটি ওয়েবসাইটেরই ওয়েব হোস্টিং প্রয়োজন।

একটি ‘ডোমেইন নেইম ’এর জন্য প্রতি বছর খরচ পড়ে কম বেশি ১০০০ টাকা এবং ‘ওয়েব হোস্টিং’ এর জন্য প্রতি বছুর খরচ পড়ে প্রায় ১০০০ টাকা।


বাংলা টাকায় ডোমেইন কিনতে পারেন ধ্রুবক অল রাউন্ডার থেকে,

থাকছে ডোমেইন রেজিষ্ট্রেশনওয়েব হোষ্টিং সুবিধা


‘ব্লুহোস্ট’ হল সবচেয়ে পুরনো ‘ওয়েব হোস্টিং’ কোম্পানিরগুলোর মধ্যে একটি। অধিকাংশ ওয়েবসাইট এই কোম্পানিই হোস্টিং করে থাকে। আমাদের WordPress.org ও এই কোম্পানিই হোস্ট করে থাকে। ওয়ার্ডপ্রেস এ কাজ করলে ‘ব্লুহোস্ট’ বিনামূল্যে একটি ‘ডোমেইন নেইম’ দিবে আপনাকে এবং ৬০% কম মূল্যে ‘ওয়েব হোস্টিং’ এর কাজ করে দিবে।

২০০৫ সাল থেকে ‘ব্লুহোস্ট’ ওয়ার্ডপ্রেস এর সাথে কাজ করে আসছে। আপনি যদি ওয়ার্ডপ্রেসের মাধ্যমে ৩০ মিনিটে ব্লগ খুলতে সক্ষম না হন, তাহলে ‘ব্লুহোস্ট’ এর বিশেষজ্ঞ দল আপনাকে বিনামূল্যে ব্লগ খুলে দিবে।

এবার আসুন জেনে নিই,

‘ব্লুহোস্ট’ এ ‘ডোমেইন নেইম’ এবং ‘ওয়েব হোস্টিং’ ক্রয় করবেন যেভাবে-

(১) ‘ব্লুহোস্ট’ ওয়েব পেইজে প্রবেশ করুন নিচের লিংকের মাধ্যমে-

https://www.bluehost.com/

(২) এবার সবুজ রঙের Get Started Now বাটনে ক্লিক করুন।

(৩) এবার আপনার পছন্দের পরিকল্পনাটি নির্বাচন করুন।

(৪)  এবার একটি বক্স আসবে এতে আপনার ব্লগিং ওয়েবসাইটের জন্য যে ডোমেইন নেইমটি পছন্দ করেছেন তা লিখে চাপুন।

(৫) এবার আপনার একাউন্টের যাবতীয় তথ্য প্রদান করে প্যাকেজটি নিশ্চিত করুন।

(৬) এই প্রক্রিয়া শেষে একটি ই-মেইলের মাধ্যমে আপনাকে জানিয়ে দেয়া হবে আপনি আপনার ‘ওয়েব হোস্টিং কন্ট্রোল প্যানেল’ এ কিভাবে প্রবেশ করবেন। ‘ওয়েব হোস্টিং কন্ট্রোল প্যানেল’ এর মাধ্যমে আপনি আপনার ব্লগিং সংক্রান্ত যাবতীয় কার্যক্রম তত্ত্বাবধায়ন করতে পারবেন।

 

ধাপঃ২

ওয়ার্ডপ্রেস ইন্সটলঃ


‘ওয়েব হোস্টিং কন্ট্রোল প্যানেল’ এর মাধ্যমে আপনি ওয়ার্ডপ্রেস ইন্সটল করতে পারবেন। ‘ওয়েব হোস্টিং কন্ট্রোল প্যানেল’ এ আপনি অনেক ছোট ছোট আইকন দেখতে পাবেন যাতে বিভিন্ন সার্ভিস এবং ফিচার সংযুক্ত থাকবে। এখানে দেখতে পাবেন একটি ‘ওয়ার্ডপ্রেস’ আইকন আছে।

এবার আসুন দেখি তা ইন্সটল করবেন যেভাবে-

(১) WordPress আইকনে ক্লিক করুন।

(২) এটি আপনাকে নিয়ে যাবে সোজা ওয়ার্ডপ্রেসের জন্য যে Bluehost Marketplace Quick Install স্ক্রিন আছে সেখানে।

(৩) এবার Get Started বাটনে ক্লিক করুন।

(৪) পরের পেইজে আপনাকে একটি ‘ডোমেইন নেইম’ লিখতে বলবে। আপনি আপনার ব্লগিং ওয়েবসাইটের জন্য যে ডোমেইন নেইম নির্বাচন করেছিলেন সেটি আবার লিখুন এখানে।

(৫) এবার পরের পেইজে আপনি আপনার ব্লগিং ওয়েবসাইটের জন্য সুন্দর একটি নাম, আপনার ইউজার নেইম এবং পছন্দমতো একটি পাসওয়ার্ড লিখুন।

(৬) নিচে বামদিকে তিনটি আইকন যাচাই করে বাটন চাপুন।

(৭) ইন্সটল শেষে একটি নোটিসের মাধ্যমে আপনাকে জানিয়ে দেয়া হবে।

(৮) এবার  Installation Complete link এ চাপ দিলে ‘ওয়ার্ডপ্রেস লগইন ইউআরএল’ সহ একটি ‘ইউজার নেইম’ ও ‘পাসওয়ার্ড’ চাবে।

(৯) এবার আপনার ‘ইউজার নেইম’ এবং ‘পাসওয়ার্ড’ লিখে লগইন করুন।

 

ধাপঃ৩

থিম নির্বাচন ও ডিজাইনঃ

প্রথমবার ওয়ার্ডপ্রেসে লগইন করলে আপনার ওয়েবসাইটটি নিচের ছবির মতো দেখবে। প্রয়োজনীয় থিম ব্যবহার করে সাজিয়ে নিতে পারেন আপনার ওয়েবসাইটটি। কারণ সুন্দরভাবে ডিজাইনকৃত একটি ওয়েবসাইটে ব্লগিং করতে কার না ভালো লাগে?

ওয়ার্ডপ্রেসে ডিজাইন করার জন্য আছে হাজার হাজার থিমের ব্যবস্থা। তবে তাদের মধ্যে কিছু পাওয়া যায় বিনামূল্যে আর কিছু কিনে নিতে হয়।

থিম পরিবর্তন করার জন্য যা করতে হবে-

(১) Dashboard এ ক্লিক করুন।

(২) Appearance > Themes এ যান।

(৩) এবার Add New বাটনে ক্লিক করুন।

(৪) এই স্ক্রিনে আপনি প্রায় ৪১০০টি থিম দেখতে পাবেন যার সবই পাবেন বিনামূল্যে। থিমের পাশাপাশি ব্যবহার করতে পারেন প্রয়োজনীয় ফিল্টার। যেমন- জনপ্রিয়, সর্বশেষ, ফিচারড প্রভৃতি।

(৫) আপনার পছন্দের থিমের উপর কার্সর রাখলে ইন্সটল অপশন আসবে। তাতে ক্লিক করে ইন্সটল করুন।

(৬) ইন্সটল শেষে পূর্বের ইন্সটল বাটনের জায়গায় একটিভেট বাটন আসবে। এতে ক্লিক করে থিমটি একটিভেট করুন।

(৭) আপনি চাইলে এই থিমেও বেশ কিছু পরিবর্তন আনতে পারেন নিজের ইচ্ছেমতো।

(৮) নিচের দিকে কাস্টমাইজ মেনু আছে। তাতে ক্লিক করে নিয়ে আসুন আরও কিছু নতুনত্ব।

 

ধাপঃ৪

প্রথম ব্লগ পোস্টঃ

এবার আপনি চাইলে আপনার ব্লগ সাইটে যেকোনো ব্লগ পোস্ট করতে পারেন।

এর জন্য যা করতে হবে-

(১) Dashboard এ ক্লিক করুন।

(২) তারপর  Posts > Add New এ যান।

(৩) এবার ‘টাইটেল’ ফিল্ডে ব্লগের টাইটেল এবং নিচের ‘রাইটিং’ ফিল্ডে ব্লগটি লিখুন।

(৪) তারপর ডানদিকে Publish বাটনে ক্লিক করে পোস্টটি প্রকাশ করুন।

(৫) বক্সের নিচে নামে আরও আইকন (Categories,Tags) থাকবে। আপনার প্রয়োজনমতো ওই ফিল্ডগুলোও পূরণ করুন। এতে যেকোনো পোস্ট খুঁজে পেতে সুবিধা হয়।

ধাপঃ৫

আনুষঙ্গিক বিষয়ঃ

প্রথম ব্লগ প্রকাশের পর আপনি হয়তো চাবেন আপনার ব্লগ সম্পর্কে বিভিন্ন তথ্য ব্লগে যোগ করতে। যাতে করে অন্যান্যরা আপনার ব্লগ সাইট সম্পর্কে জানতে পারে।

এইসব কাজের জন্য ব্যবহার করতে হবে ‘ওয়ার্ডপ্রেস প্লাগইন্স’। ‘ওয়ার্ডপ্রেস প্লাগইন্স’ মূলত এক ধরণের এপ যার মাধ্যমে ব্লগ পেইজে বিভিন্ন ফিচার যোগ করা যায়। যেমনঃ কন্টাক্ট ফর্ম, গ্যালারি, স্লাইডারস প্রভৃতি। বর্তমানে ওয়ার্ডপ্রেসের আছে প্রায় ৪৬,০০০ প্লাগইন্স।

ধাপঃ৬

শুরু করুন ওয়ার্ডপ্রেস ব্লগিংঃ

এবার আপনার নিজস্ব ব্লগ পেইজে শুরু করে দিন ওয়ার্ডপ্রেস ব্লগিং। যদি কোন সমস্যা দেখা দেয় তাহলে নিচের ওয়েব পেইজগুলো থেকে বিভিন টিপস এবং ট্রিকস জেনে সাহায্য নিতে পারেন।


ওয়ার্ডপ্রেস সম্পর্কে আপনার জ্ঞান বাড়াতে ব্যবহার করতে পারেন-

ওয়ার্ডপ্রেস বিগিনার ডিকশনারী – এতে আপনি পাবেন ওয়ার্ডপ্রেস সংক্রান্ত খুঁটিনাটি সব বিষয়। যা আপনাকে ওয়ার্ডপ্রেসে ব্লগিং এ সহায়তা করবে।

ওয়ার্ডপ্রেস বিগিনার ভিডিও – যদি ওয়ার্ডপ্রেস বিগিনার ডিকশনারী ব্যবহার করেও আপনার বুঝতে অসুবিধা হয় তাহলে এই লিংকে যেয়ে আনুষঙ্গিক ভিডিও গুলো দেখে নিতে পারেন।

ওয়ার্ডপ্রেস বিগিনার ব্লগ – এই ব্লগে আপনি পাবেন ওয়ার্ডপ্রেস সংক্রান্ত যেকোনো টিউটোরিয়াল।

ওয়ার্ডপ্রেস বিগিনার ইউটিউব চ্যানেল – এই ইউটিউব চ্যানেলে ওয়ার্ডপ্রেস সংক্রান্ত সকল টিউটোরিয়াল পাবেন।


তাহলে আর দেরি না করে আজই খুলে ফেলুন আপনার নিজস্ব ব্লগিং ওয়েবসাইট।

আপনার মতামত ...